ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

আক্রমণ, আক্রমণ এবং আক্রমণ: তামিম

২০২২ আগস্ট ১১ ০৯:১৭:২৮
আক্রমণ, আক্রমণ এবং আক্রমণ: তামিম

প্রথম ওয়ানডেতে ৩০৩ রান করেও হারতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে হেরেছে ২৯০ রান করে। আজ তৃতীয় ওয়ানডেতে স্কোর ২৫৬ রানে নেমে এলে নিশ্চয় অনেকেই ভাবেননি আজ জিততে পারবে বাংলাদেশ। কিন্তু জিম্বাবুয়েকে ১৫১ রানে গুটিয়ে দিয়ে বড় জয়ই তুলে নিয়েছেন সফরকারীরা। ম্যাচ শেষে তামিম ইকবাল বললেন, বোলারদের প্রতি তার বার্তা ছিল আক্রমণ, আক্রমণ এবং আক্রমণ।

তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলামকে বাইরে রেখে আজ হাসান মাহমুদ, ইবাদত হোসেন ও মোস্তাফিজুর রহমানকে দিয়ে পেস আক্রমণ সাজিয়েছিল বাংলাদেশ। টেস্টের নিয়মিত পেসার ইবাদত ওয়ানডের অভিষেকেই দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। তরুণ মাহমুদুল হাসানও ছিলেন ছন্দে। আক্রমণের প্রথম ফসলটা তাদের হাত ধরেই পেয়েছে বাংলাদেশ।

মাহমুদুল-ইবাদতের নিয়ন্ত্রিত পেসে ৩১ রানেই পাঁচ উইকেট হারিয়ে ফেলে জিম্বাবুয়ে। সেখানেই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণটা নিয়ে নেয় বাংলাদেশ।

ম্যাচ শেষে তামিম বলেন, ‘যখন আপনি তিন শ (৩০৩) ও ২৯০ রান করেও হারবেন, তখন ২৫০ রান দুই শ–র মতো মনে হবে। ভেবেছিলাম, আমরা ৩৫ ওভারের মধ্যে হেরে যেতে পারি। আমি ভেবেছি, শুধু আক্রমণ এবং আক্রমণই করব। তারপর কী হয় দেখা যাবে। সৌভাগ্যবশত আমরা দ্রুতই ৫টি উইকেট পেয়ে যাই, এরপর বাকি কাজটাও হয়ে যায় ।’

শেষ পর্যন্ত আজ ১০৫ রানের জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজটা ২-১ ব্যবধানে সমতায় শেষ করল বাংলাদেশ। অভিষেকেই ইবাদতের দুর্দান্ত বোলিংয়ের আগে ব্যাট হাতে দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। বিপদের মুখে ৮১ বলে ৮৫ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন তরুণ ব্যাটার।

ম্যাচ শেষে দুজনের প্রসংশায় পঞ্চমুখ তামিম, ‘একটা পর্যায়ে আমরা রান তোলায় ভুগছিলাম। কিন্তু আফিফ যেভাবে ব্যাটিং করেছে, অসাধারণ লেগেছে। বল দারুণভাবে টাইমিং করছিল এবং অসাধারণ ব্যাটিংও করেছে। আমরা ইবাদতকে দীর্ঘ সময় ধরে ওয়ানডে দলে নিয়ে ঘুরছি। কিছুটা অবাক হয়েছি তাকে এতোদিন একাদশে না দেখে। আজ তার খেলার সুযোগ ছিল এবং আমরা তাকে নিয়েছি। সে ভালো প্রতিদান দিয়েছে ভালো বোলিং করে।’

প্রথম দুই ম্যাচে বড় স্কোর গড়লেও বাংলাদেশের ব্যাটিং নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বহু। কারণ স্কোর আরও বড় করার সহজ সুযোগ ছিল, তা কাজে লাগাতে পারেনি বাংলাদেশ। দিন শেষে সেই দুর্বলতাই ম্যাচের ফল নির্ধারণ করেছে। সামনেই ওয়ানডে বিশ্বকাপ। ফলে তামিম ইকবালের নজর স্কোর আরও বড় করার সামর্থে।

বাংলাদেশ অধিনায়ক বললেন, নিয়মিত ৩৫০ রান তোলার সমর্থ থাকতে হবে, দলকে এই বার্তা জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। তামিম বলেন, ‘অবশ্যই (এমন উইকেটে ৩০০ রান যথেষ্ট নয়)। আমাদের দলীয় লক্ষ্য এটি, আমরা ৩৫০ করতে চাই। আমাদের মাথায় আছে সেটি। আগে কখনো করিনি। দলের লক্ষ্য এটিই। পরের ম্যাচেই করব তা নয়, তবে করতে চাই।’

তামিম বলেন, ‘যদি ভারতে হতে যাওয়া বিশ্বকাপের কথা ভাবি, ওখানে ৩০০ রানই ‘পার স্কোর’ হবে। খেলা বদলাচ্ছে। মিরপুর বা ভারতের কিছু মাঠে হয়তো ২৬০-২৭০ করে জিততে পারি। তবে বেশির ভাগ ভেন্যুতেই ২৯০-৩০০-৩১০—এমন করতে হবে। আমরা জানি। সামনের দিনগুলোতে আপনারা আমাদেরও সেখানে পৌঁছাতে দেখবেন, যেখানে অন্যরা যাচ্ছে।’

পাঠকের মতামত:

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে