ঢাকা, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১

দ্রুতই হারিয়ে যাবে বিপিএল-পিএসএলের মতো টুর্নামেন্ট গুলো

খেলা ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৩ ফেব্রুয়ারি ০৭ ১৬:৩৩:২৬
দ্রুতই হারিয়ে যাবে বিপিএল-পিএসএলের মতো টুর্নামেন্ট গুলো

বর্তমানে লিগের পরিমাণ বাড়লেও সবগুলো টিকে থাকবে না বলে মনে করেন সৌরভ গাঙ্গুলি। বিসিসিআইয়ের সাবেক বোর্ড সভাপতি মনে করেন, ক্রিকেটীয় কাঠামোতে পিছিয়ে থাকায় দ্রুতই হারিয়ে যাবে বেশ কয়েকটি টুর্নামেন্ট।

চারটি আন্তর্জাতিক দল ও ভারতের নয়টি শহরের দল নিয়ে ২০০৭ সালে শুরু হয়েছিল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট লিগ (আইসিএল)। তবে বিসিসিআইয়ের অনুমতি না থাকায় টেকেনি সেই টুর্নামেন্ট। এমনকি সেখানে খেলার কারণে নিষেধাজ্ঞায় পড়তে হয়েছিল বেশ কয়েকজন তারকা ক্রিকেটারকেও। আইসিএলকে টেক্কা দিতে ২০০৮ সালে বিসিসিআই চালু করেছিল আইপিএল। এরপর থেকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাদের।

জনপ্রিয়তার সঙ্গে আয়ও বেড়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের। সম্প্রতি ৪৮ হাজার কোটি টাকার বেশি মূল্যে বিক্রি হয়েছে আইপিএলের টিভি সম্প্রচার স্বত্ব। আইপিএলের আদলে তারপর শুরু হয়েছিল বাংলাদেশের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল), পাকিস্তানের পাকিস্তান প্রিমিয়ার লিগ (পিএসএল), ওয়েস্ট ইন্ডিজের শুরু হয় ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল)।

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট না হলেও ইংল্যান্ডে হচ্ছে ১০০ বলের টুর্নামেন্ট দ্য হান্ড্রেড আর অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশ টুর্নামেন্ট। এ ছাড়া কদিন আগে শুরু হয়েছে সাউথ আফ্রিকার এসএ-টোয়েন্টি এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের ইন্টারন্যাশনাল লিগ টি-টোয়েন্টি। সব টুর্নামেন্ট নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে আইপিএল, বিগ ব্যাশ, এসএ-টোয়েন্টি ও দ্য হান্ড্রেডকে এগিয়ে রাখছেন সৌরভ।

জনপ্রিয়তা ও ক্রিকেট কাঠামোর কারণে এসব লিগ টিকে থাকবে বলে মনে করেন তিনি। সরাসরি নাম না বললেও সৌরভ ইঙ্গিত দিয়েছেন আগামী ৪-৫ বছরের মাঝে হারিয়ে যেতে পারে বিপিএল, পিএসএল কিংবা সিপিএলের মতো টুর্নামেন্টগুলো। ক্রিকেটাররা এসব টুর্নামেন্ট থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে বলে ধারণা করেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক।

ভারতে একটি স্পোর্টস ইভেন্টে গিয়ে সৌরভ বলেন, ‘দুনিয়াজুড়ে এখন টি–টোয়েন্টি লিগ চলছে। কিন্তু আমি মনে করি, এর সবক'টি টিকে থাকবে না। আইপিএলের কথা আলাদা। ভারতে ক্রিকেট নিয়ে উন্মাদনা আছে। অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশ দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। ইংল্যান্ডে আছে ‘দ্য হানড্রেড’, দক্ষিণ আফ্রিকাতে শুরু হয়েছে এসএ–টোয়েন্টি। এই দেশগুলোতে ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা থাকায় এসব লিগের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। কিন্তু অন্য দেশগুলোতে তেমনটা নেই।’

‘শিগগির বিষয়টা পরিষ্কার হয়ে যাবে। আমি বিশ্বাস করি একটি সময়ের মাঝে খুব কম লিগই থাকবে। আমি জানি কোনটা টিকে থাকবে। সেটা ৪-৫ বছরের মাঝেও হতে পারে। কারণ খেলোয়াড়েরা বুঝতে পারবে এটা (লিগ) তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়। এই মুহূর্তে তারা নতুন এবং সবাই এর অংশ হতে চায়। ফলে আপনি তাদের মাঝে তাড়াহুড়ো দেখতে পাচ্ছেন।’

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



রে