ঢাকা, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১

বাংলাদেশের বোলিং তোপে ব্যাটিং বিপর্যয়ে আয়ারল্যান্ড

খেলা ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৩ মার্চ ১৮ ১৯:৫৭:০৭
বাংলাদেশের বোলিং তোপে ব্যাটিং বিপর্যয়ে আয়ারল্যান্ড

আয়ারল্যান্ডের ইনিংস বিবরণ:

প্রথম ২৫ বলে ডোহেনির ছিল ১০ রান, সেই ডোহেনি পরের ১১ বলে করেছিলেন ২৬ রান। সাকিবের এক ওভারেই দারুণ এক ইনসাইড-আউটে ছক্কার পর মেরেছিলেন দুই চার। তবে সাকিবের বলেই ফিরতে হয়েছে আইরিশ ওপেনারকে। অফ স্টাম্পের বাইরে বলে ব্যাট চালিয়েছিলেন, যতটা চেয়েছিলেন বল ততটা ওঠেনি। তাতেই হয়েছে আউটসাইড-এজ, ডোহেনি রিভিউ করারও প্রয়োজন বোধ করেননি। ১২তম ওভারে ভেঙেছে ৬০ রানের ওপেনিং জুটি।

শর্ট বল, বেরিয়ে যাচ্ছিল সেটি। পল স্টার্লিং সেটি খেলেই ভুল করেছেন। বাঁদিকে ডাইভ দিয়ে ভালো ক্যাচ নিয়েছেন মুশফিক। ঘরের ছেলে ইবাদত ছুটেছেন, এরপর থেমে দিয়েছেন ট্রেডমার্ক স্যালুট! ভালো শুরু পেলেও পরপর দুই ওভারে ফিরে গেলেন দুই আইরিশ ওপেনার—৭ বল ও ২ রানের মধ্যে।

চাইলে ড্রাইভ করতে পারতেন, চাইলে হয়তো ছেড়েও দিতে পারতেন। ইবাদতের অফ স্টাম্পের বাইরের নিরীহ গোছের বলটায় হ্যারি টেক্টর ব্যাট চালালেন বড্ড দেরি করে। উইকেটের পেছনে এবারও ভুল করেননি মুশফিকুর রহিম, নিয়েছেন ইনিংসে তৃতীয় ক্যাচ, আয়ারল্যান্ডের সেটি ছিল তৃতীয় উইকেট।

বলবার্নির আউটের ডেলিভারিটি অবশ্য ছিল দারুণ। ওভার দা উইকেট থেকে ভেতরের দিকে ঢুকিয়েছিলেন তাসকিন, লাইন মিস করে বোল্ড হয়েছেন আয়ারল্যান্ড অধিনায়ক। উদ্‌যাপনের সময় ইশারায় তাসকিন বুঝিয়েছেন, তাঁর ইনসুইং ছিল ‘ষাঁড়ের চোখ’!

৬০ রানে প্রথম উইকেট হারিয়েছিল আয়ারল্যান্ড, ৭৩ রানে হারাল চতুর্থটি। সিলেটে এলোমেলো সফরকারী দলটি। তাসকিনের আরেকটি ওভার, আয়ারল্যান্ডের আরেকটি উইকেট। এবার গেলেন লরকান টাকার। সোজা ব্যাট চালানোর বদলে আড়াআড়ি খেলতে চেয়েছিলেন লেংথ থেকে লাফিয়ে ওঠা বলটা, ক্যাচ গেছে একমাত্র স্লিপে থাকা ইয়াসির আলীর কাছে। ডানদিকে লাফিয়ে ভালো ক্যাচ নিয়েছেন তিনি। ১৬ রানের মধ্যে পঞ্চম উইকেট হারিয়েছে আয়ারল্যান্ড, ১৮তম ওভারেই ফিরে গেছেন অর্ধেক ব্যাটসম্যান।

ডিপ থার্ডম্যান ও ডিপ ফাইন লেগ—বৃত্তের বাইরে আপাতত মাত্র দুজন ফিল্ডার। সিলেটে চাপে আয়ারল্যান্ড, আক্রমণাত্মক অধিনায়ক তামিম। শেষ বলে অবশ্য বাইরে নেওয়া হয়েছিল আরেকজনকে।

১৮ ওভারে ৭৬/৫, আয়ারল্যান্ড।

বাংলাদেশের ইনিংস বিবরণ:

মার্ক আদাইয়ের করা তৃতীয় ওভারের তৃতীয় বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন তামিম ইকবাল। ফুল লেংথের বলটি ঢিলেঢালা ড্রাইভে খেলতে গিয়ে প্রথম স্লিপে পল স্টার্লিংকে ক্যাচ দেন তামিম। ৯ বলে ৩ রান করে আউট হলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

১০ম ওভারে কার্টিস ক্যাম্ফারের বলে কাভারে ক্যাচ দিয়ে আউট লিটন দাস। ৩১ বলে ২৬ রান করা লিটন বড় ইনিংসের আশা দেখাচ্ছিলেন। কিন্তু ক্যাম্ফারের লেংথ বলটি পুশ করতে গিয়ে টাইমিংয়ে গড়বড় করে স্টার্লিংকে ক্যাচ শিখিয়ে ফিরলেন লিটন। এর মধ্য দিয়ে ভেঙে গেল লিটন–নাজমুলের ৪২ বলে ৩৪ রানের জুটি।

রাউন্ড দা উইকেট থেকে করা অ্যান্ড্রু ম্যাকব্রাইনের বলটি টার্নের জন্য খেলেছিলেন নাজমুল হোসেন, তবে বল ধরে রেখেছে লাইন। তাতেই ব্যাট ও প্যাডের মাঝে বিশাল ফাঁক ছিল নাজমুলের, পুরো মিস করে হারিয়েছেন স্টাম্প। হতভম্ব নাজমুল ফিরলেন ৩৪ বলে ২৫ রান করে, আরেকটি জুটি গড়ে ওঠার ইঙ্গিত দিয়েও থামলেন আগেই।

শম ওয়ানডে সেঞ্চুরি থেকে ৭ রান দূরে ছিলেন, সাকিব থামলেন সেখানেই। আউট হওয়ার ধরনে অবশ্য নিজেই নিজের ওপর হতাশ হবেন তিনি। গ্রাহাম হিউমের অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বলে, প্রায় ওয়াইড-ঘেঁষা লাইনে আলগাভাবে ব্যাট চালিয়েছিলেন সাকিব। এজড হয়েছেন তাতেই, উইকেটকিপার লরকান টাকার নিয়েছেন সহজ ক্যাচ।

যাওয়ার পথে হৃদয়ের সঙ্গে গ্লাভসে টোকা দিলেন, মাথায় হাত রেখে যেন শুভকামনাও জানিয়ে গেলেন মুশফিকুর রহিম। ৪৯ বলে হৃদয়ের সঙ্গে মুশফিকের জুটি ভাঙল তাঁর আউটেই। আগের বলেই গ্রাহাম হিউমকে ইনসাইড-আউটে দারুণ এক চার মেরেছিলেন, এবার স্লো বাউন্সারে টাইমিং ঠিকঠাক করতে না পেরে ফাইন লেগে ক্যাচ দিলেন। তবে এর আগে মুশফিক খেলেছেন ২৬ বলে ৪৪ রানের ঝোড়ো ইনিংস, তিনটি করে চার ও ছক্কায়।

হৃদয়ের সঙ্গে তাঁর জুটিতে ৪৯ বলে উঠেছে ৮০ রান… এবং আউট হৃদয়ও! ভেতরের দিকে ঢোকা ক্রস সিমের বলটা লেগ সাইডে খেলতে গিয়ে বেসামাল হয়েছিলেন একটু, লাইন মিস করে হয়েছেন বোল্ড। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে অভিষেকে সেঞ্চুরি থেকে ৮ রান দূরেই থামলেন হৃদয়, নড়বড়ে নব্বইয়ে আজ কাটা পড়া দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান তিনি! সেঞ্চুরি না পেলেও হৃদয়ের ইনিংসটি দুর্দান্তই, ৮৫ বলের ইনিংসে ৮টি চারের সঙ্গে মেরেছেন ২টি চার।

ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহ। এর আগের সর্বোচ্চ ছিল ৮ উইকেটে ৩৩৩ রান। ২০১৯ বিশ্বকাপে নটিংহামে অস্ট্রেলিয়ার ৩৮১ রান তাড়া করতে নেমে সেটি করেছিল বাংলাদেশ।একটি ছক্কা মারার পর ফিরেছেন তাসকিন, ১০ বলে ১৭ রান করার পর ডাবলস নিতে গিয়ে রানআউট ইয়াসির আলীও। তবে বাংলাদেশ গড়েছে নিজেদের রেকর্ড ৩৩৮ রানের স্কোর। সিলেটে টসে জিতে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৮ উইকেটে বাংলাদেশের এ সংগ্রহ।

টার্গেট: জয়ের জন্য আয়ারল্যান্ডকে করতে হবে ৩৩৯ রান।

তৌহিদ হৃদয়ের রেকর্ড:

টি-টোয়েন্টির পর ওয়ানডে—হৃদয় যেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে চেনেন ভীষণ ভালোভাবেই। সিলেটে অভিষেক ওয়ানডেতে ফিফটি পেয়ে গেলেন তিনি। গ্রাহাম হিউমের বলে সিঙ্গেল নিয়ে মাইলফলকে গেলেন হৃদয়, ফিফটি করতে তাঁর লেগেছে ৫৫ বল।

সাকিব রেকর্ড:

এ ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন মাইলফলক থেকে ২৪ রান দূরে থেকে। কার্টিস ক্যাম্ফারের বলে মিড অফে সিঙ্গেল নিয়ে ওয়ানডেতে ৭ হাজার রান পূর্ণ করলেন সাকিব। তামিম ইকবালের পর দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে ৭ হাজার রান হলো তাঁর।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজেই ৩০০ ওয়ানডে উইকেট পেয়েছিলেন সাকিব। ৭ হাজার রান ও ৩০০ উইকেট—সাকিবের আগে ওয়ানডেতে এমন ‘ডাবল ছিল আর দুজনের—সনাত জয়াসুরিয়া ও শহীদ আফ্রিদির।

বাংলাদেশ একাদশ:

তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, নাজমুল হোসেন, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, তৌহিদ হৃদয়, ইয়াসির আলী, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান, ইবাদত হোসেন ও নাসুম আহমেদ।

আয়ারল্যান্ড একাদশ:

অ্যান্ড্রু বলবার্নি (অধিনায়ক), মার্ক এডেয়ার, কার্টিস ক্যাম্ফার, গ্যারেথ ডিলানি, জর্জ ডকরেল, স্টিফেন ডোহেনি, গ্রাহাম হিউম, অ্যান্ড্রু ম্যাকব্রাইন, পল স্টার্লিং, হ্যারি টেক্টর, লরকান টাকার

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



রে