ঢাকা, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বেরিয়ে এলো আসল কারন, হিমু যখন রশিতে ঝোলেন উরফি তখন খাটে বসা

বিনোদন ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৩ নভেম্বর ০৩ ১৯:৪২:০৬
বেরিয়ে এলো আসল কারন, হিমু যখন রশিতে ঝোলেন উরফি তখন খাটে বসা

শুক্রবার (৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এ বিষয়ে ব্রিফিং করেন। গ্রেফতারের পর তিনি র‌্যাবকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য দেন। উরফি জিয়া র‌্যাবকে কী বলেছেন তার বিস্তারিত জানান তিনি।

তিনি বলেন, জিয়া র‌্যাবকে জানান, ঘটনার সময় তারা দুজনেই হিমুর কক্ষে ছিলেন। তারা তর্ক করছিল। মিহি পাশের ঘরে ছিল। আলাপচারিতার একপর্যায়ে হিমু বলল: আমি মরতে পারি না? দেখি আমি পারি কিনা। এ কারণে সে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এমন সময় জিয়ার রুমে বিছানায় বসে ছিলেন উরফি। আমি সেখান থেকে পালিয়ে হিমুকে বাঁচানোর চেষ্টা করি। উরফি জিয়া র‌্যাবকে জানান, ঘটনার আগের দিন অর্থাৎ বুধবার সন্ধ্যা থেকে হিমুর সঙ্গে তার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া চলছিল। ভিগো অ্যাপস জুয়া খেলা এবং বিয়ের শক এর কারণ, উরফি বলেন।

এ কারণে বুধবার সন্ধ্যায় হিমু উরফি জিয়াকে বলেন, তার কথা না মানলে তিনি আত্মহত্যা করবেন। হিমু এটি সম্পর্কে একটি নোট লিখে, তার ছবি তুলে উরফি জিয়ার কাছে পাঠায়। আল মঈন বলেন, র‌্যাব এটি প্রমাণ হিসেবে পেয়েছে। উরফি জিয়া সম্পর্কে র‌্যাব বলেন, হুমাইরা হিমু প্রথম বিয়ে করেন ২০০০ সালে। ২০০৫ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়।

হিমু ২০১২ সালে উরফি জিয়ার সাথে দেখা করে। হিমুর এক কাজিনের সাথে তার দেখা হয়। তারা একটি সম্পর্কে ছিল. পরে তারা বিয়ে করেন। কিন্তু দুই মাস পর হিমুর চাচাতো ভাইকে ডিভোর্স দেন উরফি জিয়া। বিবাহ বিচ্ছেদের পরও হিমুর সাথে উরফির বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল এবং তার সাথে যোগাযোগ ছিল। এদিকে নির্যাতিতার সঙ্গে তৌফিক নামে এক ব্যক্তির ভালো সম্পর্ক ছিল। ২০১৭/১৮ সালে তৌফিকও আত্মহত্যা করেছিল।

এতে হিমুর মানসিক অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। তিনি একা অনুভব করলেন। এদিকে হিমু উরফির সাথে ঘনিষ্ঠ হয়েছে। হিমুর মা মারা গেছেন এক বছর আগে। তারপর থেকে তিনি তার মেক-আপ শিল্পী এবং দত্তক ভাই মিহিরের সাথে বাড়িতে একা থাকতেন। মামলায় জবানবন্দি, বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত ও গ্রেফতারকৃত উরফি জিয়ার জবানবন্দির ভিত্তিতে আল মঈন জানান, চার মাস আগে হিমুর সঙ্গে তার সম্পর্ক গভীর হয় এবং তারা দুজনেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। আর তাই হিমুর বাসায় নিয়মিত যেতেন উরফি জিয়া।

গত চার মাস ধরে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে দুজনের মধ্যে ঝগড়া চলছে। তারা প্রায়ই এসব কথা বলা বন্ধ করে দেয়। উরফি জিয়া র‌্যাবকে জানান, হিমু ভিগো অ্যাপসের মাধ্যমে অনলাইন জুয়ায় আসক্ত ছিল।এই বাজি নিয়ে সে খুবই উত্তেজিত ছিল। গত চার মাসে জুয়া খেলার জন্য তাকে মোটা অঙ্কের টাকা দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন উরফি জিয়া।

এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়াও হয়। গতকাল (বুধবার) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে হিমুর সঙ্গে দেখা করতে উত্তরার বাসায় যান উরফি জিয়া। মেকআপ আর্টিস্ট মিহির সদর দরজা খুললেন। উরফি আর হিমু মারামারি করে। একপর্যায়ে হিমু আত্মহত্যার হুমকি দেয়। কিন্তু উরফি তার কথায় খুব একটা পাত্তা দেয়নি। কারণ তিনি ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার আত্মহত্যার হুমকি দিলেও তা করেননি। কথাবার্তার এক পর্যায়ে হিমু অন্য ঘর থেকে একটা সিড়ি নিয়ে আসে। তাই আগে থেকেই বাড়ির ফ্যানের লোহার সঙ্গে প্লাস্টিকের দড়ি বেঁধে রাখা হয়েছিল।

জিয়ার ভাষ্যমতে, বুধবার সন্ধ্যায় রাশি তাকে ফাঁসির মঞ্চ দেখায় এবং তার কথা না শুনলে সে আত্মহত্যা করবে বলে জানায়। ঘটনার দিন তাদের মধ্যে মারামারি হয়েছিল বলেও ধারণা করছে র‌্যাব। কারণ বিভিন্ন বস্তু ভাঙা অবস্থায় পাওয়া গেছে। সে সিঁড়ি দিয়ে উঠে বলল, আমি আত্মহত্যা করব। কিন্তু উরফি জিয়া তার কথায় পাত্তা দেন না। একপর্যায়ে হিমু গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। উরফি জিয়া বলেন, তিনি দৌড়ে গিয়ে তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু আমি পারিনি। পরে তিনি একজন মেক-আপ আর্টিস্ট পেয়ে রান্নাঘর থেকে একটি নৌকা এনে দড়ি কেটে হিমুকে নামিয়ে দেন।

পরে জিয়া, মেকআপ আর্টিস্ট ও দারোয়ান তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসক পুলিশের সহায়তা চাইলে হিমুর গাড়ি ও মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে যায় উরফি জিয়া। র‌্যাব তাকে জিজ্ঞেস করে, তুমি হিমুর মোবাইল কেন নিলে? জবাবে জিয়া বলেন, তিনি এসব ফোন বিক্রির কথা ভেবেছেন।

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ



রে