ঢাকা, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

দেশের ২১টি ব্যাংকে ডলার সংকট থাকলেও বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে ভিন্ন কথা

জাতীয় ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৩ নভেম্বর ২৪ ১২:০০:০২
দেশের ২১টি ব্যাংকে ডলার সংকট থাকলেও বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে ভিন্ন কথা

দেশের ২১টি ব্যাংক ডলার সংকটে ভুগছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র ড. মাজবাউল হক। তিনি বলেন, সংকটে থাকা ব্যাংকগুলো বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ডলার সংগ্রহ করছে। তবে সার্বিকভাবে ডলারের কোনো সংকট নেই।

বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) বাংলাদেশ ব্যাংকের মূল ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের অধিকাংশ ব্যাংকে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি ডলার রয়েছে। কয়েকটি ব্যাংকও সংকটে রয়েছে। এসব ব্যাংক গ্রাহকের চাহিদা অনুযায়ী ঋণ খুলতে পারছে না। বাধ্য হয়ে তারা অন্য ব্যাংকের শরণাপন্ন হন। যে কারণে ডলারের বাজারে মাঝে মাঝে অস্থিরতা দেখা দেয়।

রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রির বিষয়ে মুখপাত্র বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে সরকার তার প্রয়োজনে ডলার নিয়ে থাকে। প্রয়োজনে দেশের স্বার্থে দিতে হবে। বন্ধ করার কোনো বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, দেশের ডলার খরচের মূল খাত হলো ‘আমদানি মূল্য পরিশোধ করা এবং সেবামূল্য পরিশোধ।’ এ দুই জায়গাতেই চাহিদা কমাতে সক্ষম হয়েছি। এরই মধ্যে ডলার পরিশোধের পরিমাণ অর্ধেকে নেমে এসেছে। ২০২৪ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যে মাসিক ডলার পরিশোধ নেমে ৪৯ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছাবে। বেশ কিছু পণ্য আমদানিতে সীমাবদ্ধতা আরোপ করা হয়েছে। এখন দীর্ঘমেয়াদি ঋণপত্রও খোলা কমেছে। ব্যবসায়ীরা এখন যেসব ঋণপত্র খুলছেন তার বেশির ভাগই অ্যাট সাইট এলসি বা তাৎক্ষণিক। তাই বলাই যায়, অল্পসময়ের মধ্যেই ডলার সংকট নিরসনের পাশাপাশি দেশের মূল্যস্ফীতিও নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে।

এর আগে ১৯ অক্টোবর আইএমএফের ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি পাওয়া প্রসঙ্গে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে মেজবাউল হক জানিয়েছিলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২৬ দশমিক ৬৮ বিলিয়ন ডলার।

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ



রে