আজ ১৬ জুলাই মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এমআই বিমানবাহিনীর ১৭১এসএইচ হেলিকপ্টারটি এরশাদের মরদেহ নিয়ে রংপুরের উদ্দেশে রওনা হয়। সেখানে চতুর্থ নামাজে জানাযা শেষে বাদ আসর বনানী সামরিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

এর আগে দাফনের বিষয়ে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত কী জানতে চাইলে আজ সকালে রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) মেয়র বলেন, ‘আমরা চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি রংপুরে দাফন করার জন্য। শরীরে এক বিন্দু রক্ত থাকা পর্যন্ত স্যারের মরদেহ রংপুর থেকে নিতে দেওয়া হবে না।’

এ সময় রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন বলেন, ‘জানাজা শেষে স্যারের (এরশাদ) মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে পল্লীনিবাসে। সেখানে লিচুতলায় তাকে দাফন করা হবে। এজন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।’

এদিকে রংপুরে এরশাদের দাফন নিয়ে গোলযোগের কোনো আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন এরশাদের ভাই ও জাপার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের৷ রংপুরে এরশাদের দাফনে নেতাকর্মীদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়াকে তিনি এরশাদের প্রতি ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ বলে মন্তব্য করেছেন।

এরশাদের মরদেহবাহী হেলিকপ্টার রংপুরে নিয়ে বিকেল ৩টা নাগাদ ঢাকায় ফিরিয়ে আনার কথা জানান কাদের। বনানীতে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনের সময় বিভিন্ন দূতাবাসের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রদূতরা উপস্থিত থাকবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।