ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ মার্চ ২০২১, ২০ ফাল্গুন ১৪২৭

আবারও বাংলাদেশের দ্য সুপার ফোর পাওয়ার দেখলো ক্রিকেট বিশ্ব

২০২১ জানুয়ারি ২৫ ১৮:৪৯:৪৬
আবারও বাংলাদেশের দ্য সুপার ফোর পাওয়ার দেখলো ক্রিকেট বিশ্ব

উইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে ঠিকমতো ব্যাটিং করার সুযোগই পায়নি টাইগার ব্যাটসম্যানরা। দু’টো ম্যাচেই খর্ব শক্তির উইন্ডিজ আগে ব্যাট করে টাইগারদের সামনে দিয়েছে ছোট পুঁজি। দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরা সেই দুই ম্যাচে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা মারদাঙ্গা কিছু না করতে পারলেও জয় পেয়েছে হেসেখেলেই।

আজ চট্টগ্রামে সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে আগে ব্যাট করার সুযোগ মিললে তার পূর্ণ সদ্ব্যবহার করেছেন ‘টাইগার সুপার ফোর’- তামিম, সাকিব,মুশি,মাহমুদউল্লাহরা। চারজন’ই পেয়েছেন ফিফটির দেখা। রেকর্ড গড়ে চট্টলার মাটিতে উইন্ডিজকে ২৯৮ রানের বড় লক্ষ্য দিয়েছে তামিমবাহিনী।

প্রায় চৌদ্দ মাস পর চট্টলার মাটিতে ক্রিকেট ফেরা ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে উইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ সিরিজে প্রথমবারের মতো টাইগার ব্যাটসম্যানদের বড় ইনিংস খেলার সুযোগ করে দেন। সেই সুযোগ অবশ্য কাজে লাগাতে পারেননি আগের দুই ম্যাচে ১৪ ও ২২ রান করা লিটন। সিরিজ শুরুর আগে তিন নম্বর ব্যাটিং পজিশন নিয়ে আলোচনার তুঙ্গে থাকা শান্ত এই ম্যাচে ২০ রানের আাশার সলতে জ্বেলে ব্যর্থ বরাবরের মতো।

ব্যর্থ হয়েছে ওপেনার সৌম্যকে টিম ম্যানেজেন্টের ফিনিশার বানানোর ফর্দও। তবে বরাবরের মতোই স্রোতের বিপরীতে টাইগার সিনিয়রা। ব্যাট হাতে চার সিনিয়রে কেবল দলকে উদ্ধার নয়, চট্রগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামেও সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড করেছে টাইগাররা।

মাশরাফি, সাকিব,তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ- পঞ্চপান্ডব খ্যাত এই পাঁচ ক্রিকেটার বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে গৌরবময় ঘটনাগুলোর সাক্ষী। মাশরাফির বয়স আর ইনজুরির ধকলে দীর্ঘমেয়াদে; কার্যত ২০২৩ বিশ্বকাপে তো নিশ্চিতভাবেই তাকে দলে পাওয়া যাবে না। উপমহাদেশের বিশ্বকাপ নিয়ে ভীষণ সিরিয়াস টিম ম্যানেজমেন্ট তাইতো বাস্তবতা মেনে মাশরাফিকে ফেলেছেন ছেঁটে, দিয়েছেন নতুনদের সুযোগ। মাশরাফির অবর্তমানে পঞ্চপান্ডব যুগ শেষে টাইগাররা প্রবেশ করলো সুপার ফোর যুগে।

যেখানে তামিমের নেতৃত্বে ত্রিরত্ন- সাকিব,মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ। উইন্ডিজের বিপক্ষে এই চার আজ গড়েছোন অবিশ্বাস্য কীর্তি। ব্যাট হাতে চার জনই পেয়েছেন ফিফটির দেখা। এর আগে ২০১৫ বিশ্বকাপে এই চার ক্রিকেটার একই ম্যাচে প্রথমবার ৫০+ ইনিংস খেলেন। আজকের ম্যাচে অবিশ্বাস্যভাবে তামিম, মুশফিক, রিয়াদ- এই তিনজন সমান ৬৪ করে রান করেছেন। সাকিবের উইলো থেকে এসেছে ৫১ রান। এই চারজনের ব্যাট থেকেই এসেছে ইনিংসের প্রায় ৮২ শতাংশ রান।

বড় সাফল্য পেতে গেলে দলের প্রতিটি ক্রিকেটারের বড় ভূমিকার প্রয়োজন পড়ে। তবে বাংলাদেশে সেই ক্রিকেট কাঠামো এখনও গড়ে উঠেনি। বিগত বছরগুলোতে বেশকিছু তরুণ প্রতিভাবান ক্রিকেটার উঠে আসলেও বড় সাফল্যে সবসময়ই সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছে টাইগার পঞ্চপান্ডব। অসংখ্য তরুণ প্রতিভাবান ক্রিকেটারের ভীড়ে কেউই এখনও দলে নিজের জায়গা পাকাপোক্ত করতে পারেননি। তাইতো মাশরাফি পরবর্তী যুগে এই সুপার ফোরের কাঁধেই বড় দায়িত্ব। এই চারের ৮৩১ ওয়ানডের অভিজ্ঞতার সাথে তরুণদের যুগলবন্দীর মিশেলে টাইগারদের ‘ভিশন ২০২৩’ এ বড় সাফল্য প্রত্যাশা করাই যায়।

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে