ঢাকা, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮

নিউজিল্যান্ডে দুইবার না তিনবার দেখা যাচ্ছে টাইগারদের

২০২১ মার্চ ০১ ১৯:০১:৫৪
নিউজিল্যান্ডে দুইবার না তিনবার দেখা যাচ্ছে টাইগারদের

করোনা পরবর্তী প্রথম বিদেশ সফরে যাওয়া বাংলাদেশ দলকে নিউজিল্যান্ডে মানতে হচ্ছে কঠোর কোয়ারেন্টাইন বিধিনিষেধ। ইতোমধ্যে ৬ দিন পার হলেও বেশ সংযতই থাকতে হচ্ছে টাইগারদের। প্রথম তিনদিন পুরোপুরি গৃহবন্দী থাকলেও ধীরে ধীরে বাড়ছে গ্রুপ হয়ে বের হাঁটাহাঁটি করার সুযোগ। তবে এখনো পর্যন্ত ক্রিকেটারদের ঘুমের সমস্যাই বেশি হচ্ছে বলে জানান দলের সাথে যাওয়া বোর্ড পরিচালক জালাল ইউনুস।

বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার রাতে না ঘুমিয়ে দিনে ঘুমাচ্ছেন। তবে আউটডোর অনুশীলন শুরু হলে ঘুমের সমস্যাও কাটিয়ে ওঠা যাবে বলে মনে করেন বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান ও পরিচালক জালাল ইউনুস। শুরুতে খাওয়া দাওয়া নিয়ে সমস্যার কথা জানা গেলেও এখন সেটিও অনেকটা স্বাভাবিক হয়েছে।

এক ভিডিও বার্তায় জালাল ইউনুস বলেন, ‘প্রথম ২-৩ দিন অনেকেরই সমস্যা হচ্ছিল। কিন্তু পরে যখন বের হওয়া শুরু করলো, আমরা এখন দিনে দুইবার বের হতে পারি ৩০-৪০ মিনিট হাঁটা যায়। সবার সাথে সবার দেখা হওয়াতে অনেকেই মানসিকভাবে ফ্রেশ হয়ে গেছে। আসলে আর কোন অভিযোগ নেই, একটা অভিযোগ হল কয়েকজনের ঘুমের সমস্যা হয়েছে। সময়ের কারণে হতে পারে। অনেকে রাতের বেলা না ঘুমিয়ে দিনের বেলায় ঘুমাচ্ছে। আশা করি আবার যখন ওরা আউটডোরে যাবে তখন মানিয়ে নিবে।’

‘সবার সাথে দেখা হচ্ছে, যখন আমরা গ্রুপ হয়ে বের হচ্ছি। গ্রুপগুলো আবার পরিবর্তন করে দেওয়া হয়। প্রতিদিন একই গ্রুপ থাকেনা। এতে করে প্রতিটি প্লেয়ারের সাথেই সশরীরে কথা বলতে পারি। দেখা সাক্ষাত হচ্ছে। সবাই আলহামদুলিল্লাহ মানসিকভাবে ফিট আছে। একটাই সমস্যা যে ঘুম। আশা করি এটাও আউটডোর অনুশীলনের পর ঠিক হয়ে যাবে।’ খাওয়া দাওয়া প্রসঙ্গে বোর্ডের এই পরিচালক বলেন, ‘মানসিকভাবে সবাই ফিট, খাওয়াদাওয়ারও কোন অভিযোগ নেই কারও। হিল্টন হোটেলে আছি আমরা, প্রকৃতপক্ষে স্ট্যান্ডার্ড খাওয়া দাওয়া, খুবই ভালো। অপশনও আছে, কেউ চাইলে উবার ইটসের মাধ্যমে খাবার আনাতে পারে। দুই একজন খাচ্ছেও। তবে মোটামুটি সবাইই হোটেলের খাবারই খাচ্ছে।’

বর্তমানে ক্রাইস্টচার্চে অবস্থান করা বাংলাদেশ ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে কুইন্সটাউন ৫ দিনের অনুশীলন ক্যাম্প করবে ১০ মার্চ থেকে। তার আগে কোয়ারেন্টাইনের এই অভিজ্ঞতা একদমই ভিন্ন বলছেন জালাল ইউনুস।

তার মতে, ‘এটা ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা। সবার কাছেই নতুন। কোভিডের কারণে এখানে কড়া কোয়ারেন্টাইন বিধিনিষেধ। আমরা সবাইও মানছি, নিউজিল্যান্ড সরকার যেভাবে কোভিড প্রটোকল করে দিয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি এটা মানতে। কিন্তু এটা খুবই কঠিন। সবচেয়ে বড় কথা আমরা এ ধরণের পরিস্থিতিতে এর আগে পড়িনি। আমার থেকে খেলোয়াড়দের কথা যদি বলি তারা এ রকম পরিস্থিতিতে পড়েনি এর আগে। বাংলাদেশে যখন খেলেছে তখন তিনদিন পরই তারা অনুশীলন করতে পেরেছিল।’

দিনে দুই বেলা করে ৩০-৪০ মিনিট হাঁটার সুযোগ দেওয়া হয় চতুর্থ দিন থেকে। এখন থেকে সেটা বেড়ে তিন বেলা হবে বলেও জানান বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান। ৩৫ সদস্যকে চারটি আলাদা গ্রুপ করে বের হোয়ার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। যেখানে প্রতিদিনই পরিবর্তন হয় গ্রুপ সদস্যের। যে কারণে সবার সাথেই সবার দেখা হচ্ছে। জালাল ইউনুস এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘৩৫ জন আছে, ৯ জন করে তিনটা গ্রুপ, একটা গ্রুপে ৮ জন। এভাবেই আমরা বের হচ্ছি দুই বেলা। আজকে যেমন আমাদের তিনবেলা হয়ে যাবে। আরেকবার আমাদের সুযোগ দিচ্ছে যেটা মাত্র ম্যাসেজ পেলাম, সাব্বির (সাব্বির আহমেদ) হোয়াটস অ্যাপ করেছে। সন্ধ্যার সময় আমরা ঘাসের উপর হাঁটতে পারবো। এতে আমাদের তিনবার বের হওয়া হচ্ছে।’

পাঠকের মতামত:

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে