ঢাকা, বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮

ভালো খেলেও দলে সুযোগ না পাওয়ায় যাকে দোষালেন সোহান

২০২১ মার্চ ০২ ২৩:৪৬:৪০
ভালো খেলেও দলে সুযোগ না পাওয়ায় যাকে দোষালেন সোহান

টেকনিক্যালি দেশের অন্যতম সেরা উইকেট রক্ষক বলা হয় তাকে। ব্যাট হাতে ঘরোয়া ক্রিকেটের নিয়মিত পারফর্মারও নুরুল হাসান সোহান। তবে ২০১৬ সালে জাতীয় দলে অভিষেকের পর খুব দ্রুতই বাদ পড়তে হয় তাকে। যেখানে পারফরম্যান্সেওর চাইতে দলের কম্বিনেশনকেই বেশি দুষছেন সোহান নিজেই।

২০১৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক সোহানের। এরপর ২০১৭ সালে নিউজিল্যান্ড সফরে হয় টেস্ট ও ওয়ানডে অভিষেক। ক্রাইস্টচার্চে একমাত্র টেস্টে প্রথম ইনিংসে ৪৭ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ফিরেছেন খালি হাতে। দুই ওয়ানডেতে ৭ ও ৮ নম্বরে নেমে রান করেছেন যথাক্রমে ২৪ ও ৪৪ রান। সফরে তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলে অবশ্য ব্যর্থই হয়েছেন।

ঐ সফরের পর ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলার সুযোগ হয়নি এখনো। ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে অবশ্য খেলেছেন দুইটি টেস্ট। প্রথম টেস্টে ৬৪ রানের একটি ইনিংস খেললেও দ্বিতীয় টেস্টে দুই ইনিংসেই ফিরেছেন খালি হাতে, উপহার দিয়েছেন জোড়া গোল্ডেন ডাক। আপাতত টেস্ট ক্যারিয়ারও আঁটকে আছে সেখানে।

ঘরোয়া লিগে রান করেছেন ধারাবাহিকভাবে। ২০১৯-২০ মৌসুমে জাতীয় লিগে ৫ ম্যাচে ৭ ইনিংসে ৮০.২৫ গড়ে ২ ফিফটি এক সেঞ্চুরিতে ৩২১ রান। ২০১৯-২০ মৌসুমে বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে (বিসিএলে) ৪ ম্যাচে ৬ ইনিংসে ৫২.৬০ গড়ে এক সেঞ্চুরিতে রান করেছেন ২৬৩। ২০১৮-১৯ মৌসুমে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে (ডিপিএলে) ১৬ ম্যাচে ৪৩.৬৬ গড়ে ৪ ফিফটিতে রান করেছেন ৫২৪।

তবে জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া নিয়ে আক্ষেপ করতে চান না সোহান। দলের কম্বিনেশনের কারণেই বাদ পড়তে হচ্ছে জানানো এই উইকেট রক্ষক আবারও সুযোগ পেলে দিতে চান নিজের সেরাটা।

আজ (২ মার্চ) মিরপুরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সোহান বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় সবার সুযোগ এক রকম আসবেনা। অনেক সময় আমি ভালো খেলেও দল থেকে বাদ পড়তে পারি টিম কম্বিনেশনের কারণে। এভাবেই মাথায় সেট করেছি। দলের জন্য যেটা ভালো হবে। অনেক সময়ই হয় ভালো খেলেও বাদ পড়ছে। এটা টিম কম্বিনেশনের কারণে হতে পারে। তো আমার কাছে মনে হয় যদি দলের প্রেফারে এরকম কোন সুযোগ আসে আবার জাতীয় দলে খেলার চেষ্টা করবো নিজেস্র শতভাগ দেওয়ার।’

‘আমি যেরকম খেলেছি, সেরকমই আছি। ঘরোয়া ক্রিকেটে নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করছি। হয়তো অন অ্যান্ড অফ… ৭, ৮ নম্বরে খেলে যতটুকু পেরেছি চেষ্টা করেছি। শেষ যখন জাতীয় দলে খেলেছি তখনের চাইতে নিজেকে আরও বেশি পরিণত করতে চেষ্টা করছি। সামনে সুযোগ আসলে সেরাটা দিতে চেষ্টা করবো। আর আমার কাছে কোন আক্ষেপ মনে হয়না যে কোন কিছুতে পরিবর্তন এসেছে।’

‘কারণ আমি যখনই ঘরোয়া ক্রিকেট খেলছি আল্লাহর রহমতে পারফর্ম করছি। চেষ্টা করছি আগের চেয়েও ভালো পারফর্ম করার। এর আগে জাতীয় দলে যখন খেলেছি তখন থেকে চেষ্টা করছি নিজেকে কিভাবে আরও উন্নতি করা যায়, পরিণত করা যায়। যদি সুযোগ আসে…যেখানেই খেলছি চেষ্টা করছি নিজের সেরাটা দিয়ে। জাতীয় দলেও যদি সুযোগ আসে চেষ্টা করবো নিজের সেরাটা দিতে।’

দেশের সেরা উইকেট রক্ষক বলে ধরা হয় ২৭ বছর বয়সী সোহানকে। উইকেটের পেছনে উপভোগ করেন উল্লেখ করে সোহান জানালেন ব্যাট হাতেও পরিস্থিতি বিবেচনা সেরাটা খেলতে চান সবসময়। যে পজিশনে ব্যাটিং করেন সেখানে বড় ইনিংস খেলার চাইতে দলে অবদান রাখাতেই বেশি মনযোগ দিতে হয় বলেও জানান এই ব্যাটসম্যান।

বাংলাদেশের জার্সিতে ৩ টেস্ট, ২ ওয়ানডে ও ৯ টি-টোয়েন্টি খেলা এই উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান বলেন, ‘কিপিং একরকম, ব্যাটিং আরেক রকম। অবশ্যই কিপিং উপভোগ করি, যে পরিস্থিতিতে ব্যাটিং করি আমার মনে হয় নিজের পারফরম্যান্সের চাইতে দলের পারফরম্যান্সেই বেশি নজর থাকে।’

‘আমি যেখানে ব্যাট করি ৬,৭ ও ৮ নম্বরে এখানে ১০০ বা ৫০ মারার সুযোগ থাকবে না। এই পজিশন দল জেতানোর জন্য। টি-টোয়েন্টি বা ওয়ানডেতে ১০ বলে ২০ রানের একটা ইনিংস বড় অবদান রাখবে দলের জন্য। আমার কাছে এটাই মনে হয় যে পরিস্থিতি আসবে সেটার সাথে মানিয়ে নিতে হবে।’

পাঠকের মতামত:

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে