ঢাকা, রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

ফেসবুক লাইভে সাকিবের প্রশ্নে তোলপাড় পুরো বাংলাদেশ ক্রিকেট

২০২১ মার্চ ২১ ১৫:২১:৪৮
ফেসবুক লাইভে সাকিবের প্রশ্নে তোলপাড় পুরো বাংলাদেশ ক্রিকেট

সাকিব আইপএল খেলার জন্য ছুটি নেয় এরপর থেকে শুরু নানা আলোচনা সমলোচনা। তবে এই নিয়ে এতো দিন মুখ খুলেনি সাকিব। কিন্তু গতকাল ফেসবুক লাইভে এসে সব ধোয়াসা দুর করেছে সাকিব নিজেই। এবং ছুড়ে দিয়েছেন কিছু প্রশ্ন।

সাকিব আল হাসান টেস্ট খেলতে চান না, এই কথাটা এখন রটে গেছে মুখে মুখে। সাধারণ সমর্থকরা এমন ধারণা করতেই পারেন, তারা ভেতরের অনেক কিছু বুঝতে পারেন না। কী কারণে কোনো খেলোয়াড় কোন সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন, সেটাও হয়তো সবার বোধগম্য হয় না।

কিন্তু বোর্ডের দায়িত্বশীল কোনো জায়গা থেকে যখন কেউ বলেন এমন কথা, তখন সেটা মেনে নেয়া কঠিন, মনে করেন সাকিব। দেশ তথা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার আলাদা করেই আঙুল তুলেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খানের দিকে।

নিজের ফেসবুক পেজে শেয়ার করা এক লাইভ অনুষ্ঠানে সাকিব সরাসরিই বলেন, আকরাম খান তার কথাকে ভুলভাবে উপস্থাপন করছেন। বিসিবির কাছে শ্রীলঙ্কা সফরে খেলতে চান না জানিয়ে যে চিঠি দিয়েছেন, সাকিব জানালেন- তাতেও তিনি পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করেছেন বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্য আইপিএলটা খেলতে চান। টেস্ট খেলতে চান না এমন কথা কখনও কোথাও বলেননি।

আকরাম খানের এমন ‘ভুল তথ্য’ ছড়ানো নিয়ে সাকিবের কথা, ‘আকরাম ভাই বলেছে আলাদা করে। গতকালও সম্ভবত কোথাও বলেছে যে আমি টেস্ট খেলতে চাই না। আমার ধারণা তিনি চিঠিটা ঠিকভাবে পড়েনইনি। বারবার তিনি বলছেন, আমি টেস্ট খেলতে চাই না। এটা আমি কোথাও বলিনি।’

সাকিব যোগ করেন, ‘আমি যে মাঠে খেলব সেই মাঠেই সেই প্রতিপক্ষের সঙ্গে চার মাস পর খেলব বিশ্বকাপ। আমি তাই এই জায়গায় অন্যদের তুলনায় বেশি প্রস্তুতি নিতে পারব। বাংলাদেশ দলের অন্যদের সঙ্গেও আমার অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারব। এটা দলকে সাহায্য করবে। একেকজনের কাছে একেকরকম মনে হতে পারে। যে যে জায়গায় থাকে, সেই শুধু সেই পরিস্থিতিটা বুঝবে। আমি আশাও করি না সবাই এটা বুঝবে। মানুষের কথা থাকবেই, এটা নিয়ে আমি চিন্তা করি না। এমন কোনো জায়গা থেকে ভুল মন্তব্য করা উচিত নয়, যেটা মানুষকে ভুল ভাবতে সাহায্য করে।’

ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খানকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে সাকিব বলেন, ‘ক্রিকেট অপারেশন্স জাতীয় দল নিয়ে কী কাজ করেছে, কী প্ল্যান করছে? তাদের ব্যর্থতা বা সাফল্য কী? আকরাম ভাই তো অনেক গাটসি (সাহসী) মানুষ, এর আগে উনি পদত্যাগও করেছেন। ব্যর্থতার দায় তো তার ওপরও পড়ে, নাকি?’

সাকিব যোগ করেন, ‘আমাদের এইচপি শেষ চার-পাঁচ বছরে কয়টা খেলোয়াড় তৈরি করেছে, আমি জানি না। অনেকেই আছেন, তারা একসময় বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। তারা আসলে (বোর্ডে) কী নিয়ে কাজ করছেন, আমি জানি না।’

বিসিবির প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন আর পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন ছাড়া বাকিরা কী কাজ করেছেন ক্রিকেটের উন্নতির জন্য, খুঁজে পাচ্ছেন না সাকিব। তার কথা, ‘আমাদের থেকে শুরু করে এই পর্যন্ত একটা গ্যাপ। এই জায়গায় কী কাজ হয়েছে? আমাদের একাডেমি বা এইচপিতে তো এমন তো কোনো কাজ দেখি না। সুজন ভাই ছাড়া কারও খুব বেশি ইনভলভমেন্ট নাই। গত চার-পাঁচ বছরে আমি তো কিছু দেখি না। পাইপলাইন মানেই এমন খেলোয়াড় যে এসে জায়গাটা পূরণ করবে। এমন কিছু কি হয়েছে?’

বিসিবি প্রেসিডেন্টের অবদানের কথাও আলাদা করে উল্লেখ করে সাকিব বলেন, ‘আমরা সবসময় পাপন ভাইকে দোষ দেই। পাপন ভাই আমার কাছে মনে হয় যত বেশি চিন্তা করে, ওত বেশি চিন্তা খুব কম মানুষই আছে ক্রিকেট বোর্ডে করে। সুজন ভাইও করে। তার ফলটাও আমরা দেখতে পাচ্ছি। যুবদল ভালো করছে। এই দু’জন ছাড়া ক্রেডিট দেয়ার মানুষ তো দেখি না, যারা আসলে ক্রিকেটটা নিয়ে ভাবছে।’

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আজকের আলোচিত সংবাদ এর সর্বশেষ খবর

আজকের আলোচিত সংবাদ - এর সব খবর



রে