ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮

মাহমুদউল্লাহ ১৯৯ নট আউট

২০২১ জুলাই ১৯ ২১:৪৭:৪৬
মাহমুদউল্লাহ ১৯৯ নট আউট

বাংলাদেশের অন্যতম ভরসামান ব্যাটসম্যান নাম হলো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। খাদের কিনারা থেকে দলকে সব সময় টেনে আনেন তিনি। বাংলাদেশ দলকে নিরবেই যেন দিয়ে যান সবটুকু। এবার অনন্য এক মাইলফলকের সামনে। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলে ফেলেছেন ১৯৯টি ম্যাচ। হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ ওয়ানডে খেলতে নামলে মাহমুদউল্লাহর ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ হবে।

পঞ্চম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে অনন্য অর্জনে নাম লেখানোর অপেক্ষায় মাহমুদউল্লাহ। দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন মুশফিকুর রহিম। ২০০৬ সালে অভিষেক হওয়া এই ব্যাটসম্যান খেলেছেন ২২৭ ওয়ানডে। মাশরাফি আন্তর্জাতিক ওয়ানডে খেলেছেন ২২০টি। বাংলাদেশের জার্সিতে খেলেছেন ২১৮টি।

২টি ম্যাচ খেলেছেন এশিয়া একাদশের হয়ে। এছাড়া তামিম ২১৮, সাকিব ২১৪ ম্যাচ খেলেছেন। খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন এমন ক্রিকেটারদের মধ্যে একশর বেশি ম্যাচ খেলেছেন কেবল মোহাম্মদ আশরাফুল (১৭৫) ও রুবেল হোসেন (১০৪)। যদিও জাতীয় দলে আশরাফুলের ফেরার সম্ভাবনা ক্ষীণ।

সাইলেন্ট কিলার খ্যাত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১৯৯ ওয়ানডেতে ৩৪.৯১ গড়ে ৪৪৬৯ রান করেছেন। নামের পাশে আছে তিন সেঞ্চুরি, ২৫টি হাফ সেঞ্চুরি। তিন সেঞ্চুরির দুইটি এসেছে ২০১৫ বিশ্বকাপে। অপরটি ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক ম্যাচে।

তবে মাহমুদউল্লাহর অবদান পরিসংখ্যানের থেকেও অনেক বড়। কঠিন পরিস্থিতিতে বুক চিতিয়ে লড়াই করা, লোয়ার অর্ডারে দ্রুত রান তোলা, ৩০ থেকে ৪০ রানের অবদান রেখে দলের স্কোরকে বড় করা, কখনও কখনও ম্যাচ জেতানো ছোট্ট ক্যামিও মাহমুদউল্লাহকে করেছে অনন্য।

দলের প্রয়োজনে বাড়তি ঝুঁকি নিয়ে ব্যাটিং করে কখনও সফল হয়েছেন, কখনও ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু দিনের পর দিন ক্রাইসিস ম্যান হিসেবে তিনি টিকে ছিলেন। নায়ক হতে পেরেছেন পাঁচবার। কিন্তু অসংখ্যবার তিনি পার্শ্বনায়ক হয়ে ছিলেন।

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে