ঢাকা, বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৭ আশ্বিন ১৪২৮

হড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষ হলো ব্রাজিল, মেক্সিকো, জাপান ও স্পেনের মধ্যকার ম্যাচ, দেখেনিন ফলাফল

২০২১ আগস্ট ০৩ ২৩:০৮:৩৫
হড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষ হলো ব্রাজিল, মেক্সিকো, জাপান ও স্পেনের মধ্যকার ম্যাচ, দেখেনিন ফলাফল

বিশ্বকাপ কিংবা অলিম্পিক- এতবড় বিশ্ব আসরের ফাইনালটা জমজমাট না হলেই যেন জমে না। গত অলিম্পিকের ফাইনাল ছিল ব্রাজিল এবং জার্মানির মধ্যে। এবার ব্রাজিল মেক্সিকোকে টাইব্রেকারে হারিয়ে আগেই ফাইনালে আসন নিশ্চিত করে রেখেছিল। এর ঠিক তিন ঘণ্টা পর অন্য দলটিও নির্ধারণ হয়ে গেলো। স্বাগতিক জাপানকে ১-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট কেটে নিলো স্পেন।

ব্রাজিল এবং স্পেন ফাইনাল। অলিম্পিকের মত দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের ফুটবল ইভেন্টের ফাইনালে এমন দুটি দলেরই প্রয়োজন ছিল। আকর্ষণটা তাই ফাইনাল পর্যন্তই ধরে রাখলো অলিম্পিক গেমস। অলিম্পিক গেমস শেষ হওয়ার আগেরদিন, ৭ আগস্ট ইয়োকোহামার ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে সোনার লড়াইয়ে অবতীর্ণ হবে ব্রাজিল এবং স্পেন। তার একদিন আগে, ৬ আগস্ট ব্রোঞ্জ পদকের লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে মেক্সিকো এবং স্বাগতিক জাপান।

ফাইনালে উঠলেও স্পেনকে বেশ ঘাম ঝরিয়েই জিততে হয়েছে। স্বাগতিক জাপান ছেড়ে কথা বলেনি স্প্যানিশদের। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের খেলা ছিল গোলশূন্য ড্র। এরপর খেলা গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে। সেখানেই বাজিমাত করেন স্পেনের অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার মার্কো আসেনসিও।

পুরো ম্যাচেই অসাধারণ ফুটবল খেলেছে জাপান। দারুণ উদ্ভাবনী ফুটবল উপহার দিয়েছিল জাপানিরা। কখনো কখনো স্প্যানিশদের মুহূমুহু আক্রমণ দারুণ দক্ষতায় ঠেকিয়ে দিয়েছিল তারা। ম্যাচটাকে টাইব্রেকারের দিকেই নিয়ে যাচ্ছিল তারা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মাত্র ৫ মিনিট দুরে থাকতেই রিয়াল মাদ্রিদের ফুটবলার মার্কো আসেনসিও সর্বনাশটা ঘটিয়ে দেন জাপানের।

প্রথমার্ধেই আসলে এগিয়ে যেতে পারতো স্পেন। ম্যাচে দায়িত্ব পালন করা পেরুভিয়ান রেফারি কেভিন ওর্তেগা পেনাল্টি উপহার দেন স্পেনকে। মায়া ইয়োশিদার চ্যালেঞ্জের কারণে বক্সের মধ্যেই পড়ে যান মাইকেল মেরিনো। যে কারণে পেনাল্টির নির্দেশ দেন রেফারি। কিন্তু পরে ভিএআর দেখে নিশ্চিত হওয়া গেলো, যে অপরাধ হয়েছে তার জন্য পেনাল্টি দেয়া যায় না।

পেনাল্টি বাতিল হওয়ার ফলে দু’দলের সামনেই সমান সুযোগ চলে আসে। দ্বিতীয়ার্ধেও দু’দল ওপেন নেট খেলা শুরু করে বলতে গেলে। কিন্তু বল মাঠেই ঘুর-পাক খেয়েছে, কোনো পক্ষেই জালে জড়ানোর সুযোগ পায়নি।

এর আগে প্রথম সেমি ফাইনালে মাঠে নামে দুই শক্তিশাল দল মেক্সিকো ও ব্রাজিল। অলিম্পিক মানেই যেন ব্রাজিলের জয়জয়কার। মেক্সিকোকে টাইব্রেকারে হারিয়ে টোকিও অলিম্পিকের ফাইনালে উত্তীর্ণ হলো সেলেকাওরা। নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্য ড্র থাকার পর টাইব্রেকারে ৪-১ গোলের জয় পেয়েছে সেলেকাওরা।

টানা তৃতীয়বারের মতো বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়াযজ্ঞ অলিম্পিকের ফাইনালে জায়গা করে নিলো তারা। নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্য ড্র থাকলে খেলা গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে। সেখানেও কোন দল গোল করতে না পারলে ভাগ্য নির্ধারণ হয় পেনাল্টি শ্যুট আউটে।

ব্রাজিলের পক্ষে শ্যুট আউটের প্রথম শটেই গোল করেন অভিজ্ঞ দানি আলভেজ। মেক্সিকো হয়ে প্রথম শট নিতে এসে ব্যর্থ হন এদুয়ার্দো আগুইরে। গোল করতে ব্যর্থ হন তিনি। এরপর ব্রাজিলের পক্ষে দ্বিতীয় গোলটি করেন গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেলি। মেক্সিকোর হয়ে দ্বিতীয় শটেও গোল করতে ব্যর্থ হন ইয়োহান ভাস্কুয়েজ।

তাতেই অনেকটা নিশ্চিত হয়ে যায় ব্রাজিলের অলিম্পিক ফাইনালে খেলা। ব্রুনো গুইমারেজ ও রেইনার ব্রাজিলের পক্ষে গোল করলে নিশ্চিত হয় সেটি। মেক্সিকোর একমাত্র সফল পেনাল্টিটি নেন কার্লোস রদ্রিগেজ।

ফলে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত হওয়া সর্বশেষ অলিম্পিক আসরের স্বর্ণজয়ীরা। ফাইনালে তারা মুখোমুখি হবে জাপান-স্পেন ম্যাচের বিজয়ী দলের।

পাঠকের মতামত:

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে