ঢাকা, রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮

আমি বুঝে ফেলেছি আমার মৃত্যুর আগে কেউ বিসিবি সভাপতি হতে চায়না: পাপন

২০২১ সেপ্টেম্বর ২১ ১৯:৩৩:০৫
আমি বুঝে ফেলেছি আমার মৃত্যুর আগে কেউ বিসিবি সভাপতি হতে চায়না: পাপন

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এর আগে ইঙ্গিত দিয়েছেন যে তিনি আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে চান না। এবার তিনি একই সুরে কথা বললেন। তিনি আরও বলেন, বিসিবির সভাপতি নির্বাচন করতে কেউ আগ্রহী নয়। এটি তাকে কিছুটা বিরক্ত করে।

পাপনের দ্বিতীয় মেয়াদ শেষ হচ্ছে চলতি মাসেই। আগামী মাসের ৭ তারিখই নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। তবে পাপন নিজে এবার সভাপতি পদে নির্বাচন করতে আগ্রহী নন। এমনকি নেই তার আলাদা কোনো প্যানেলও। সবার জন্যই পথ খোলা রেখেছেন, যদিও এখনো পর্যন্ত অন্য কোনো প্রার্থীর নাম সামনে আসেনি।

গত দুই মেয়াদেই পাপন নির্বাচিত হয়েছেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। তার দেওয়া প্যানেল ঘোষণা হওয়ার পর আর কেউ আলাদা করে সভাপতি পদে নির্বাচন করতোনা। যে কারণে আবার প্যানেল থেকে বেরিয়ে এসেছেন, মনে প্রাণে চান নির্বাচনটা যেন নির্বাচনের মত হয়। কেউ আগ্রহ না দেখানোয় পাপনের নিজের কাছে মনে হয় তার মৃত্যুর আগে বুঝি কেউই বিসিবি সভাপতি হতে চাইবেনা।

নির্বাচন সামনে রেখে আজ (২১ সেপ্টেম্বর) মিরপুরে বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত হয়। ১২তম বোর্ড সভায় নির্বাচনের বাইরে খুব বেশি এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা হয়নি। সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

নির্বাচন করতে না চাওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আমি যদি এখানে থাকি, আমার একটা জিনিস মনে হচ্ছে যে আমি মারা যাওয়ার আগ পর্যন্ত কেউ এই পদটা নিতে চাইবে না। এটা একটা ভুল জিনিস আমি এটা মনে প্রাণে বিশ্বাস করি না।

আমি চাই আমার বোর্ডে যারাই আসুক তারা চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করুক আমি সভাপতি হতে চাই। অন্তত বলুক, এখন তো কেউ বলেও না। এটা ভালো দিক না। কারও জন্য কিছু আটকে থাকে না। আমাদের একটা পাইপলাইন থাকা উচিত নতুন নতুন যারা দায়িত্ব নেবে।’

‘আবারও বলে নিচ্ছি এবারের নির্বাচনটা একটু ভিন্ন। আমি আগে থেকেই বলে আসছি আবারও বলছি, আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি নতুন নতুন ধারণা, নতুন নতুন মাইন্ড যদি না আসে ক্রিকেট বোর্ডে তাহলে নতুন কিছু করার আইডিয়াও আসে না। সব একই ধারায় চলতে থাকে। এবার আমি মনে প্রাণে চাচ্ছি নতুন লোকের আসা উচিত।’

‘সেজন্য এবারই প্রথম, আমার জানা মতে। আপনাদেরকে বলেছি আজ আবারও কনফার্ম করছি আমার কোনো প্যানেল নেই। যে খুশি দাঁড়াতে পারে, নির্বাচন হবে যে জিতবে সে আসবে। ওইখানে যদি আমি জিতে আসি তাহলে আমি পরিচালক হওয়ার জন্য আসবো।’

‘প্রত্যেকবার একটা প্যানেল থাকে। প্যানেলটা দিলে হয় কি আর কেউ দাঁড়ায়ই না। অপ্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে যাচ্ছে। এবার তো প্যানেলেই নাই। এবার তো কেউ বলতে পারবে না যে এ আমার প্রার্থী কিংবা ও আমার প্রার্থী। আমি আশা করবো এবার নির্বাচনটা হোক।’

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে