ঢাকা, শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

গোপণ তথ্য ফাঁস: টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে অবসর নিতে চেয়েছিলেন রিজওয়ান

২০২২ জানুয়ারি ২৭ ১৭:০২:৫৮
গোপণ তথ্য ফাঁস: টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে অবসর নিতে চেয়েছিলেন রিজওয়ান

পাকিস্তানের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ রিজওয়ান আমাদের সময়ের অন্যতম বিখ্যাত ক্রিকেটার। তবে এই জায়গায় পৌঁছতে তাকে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। গত বছর একই সময়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি গড় ছিল ২২, স্ট্রাইক রেট ছিল ১০৮!

অথচ বছর শেষে সেই মোহাম্মদ রিজওয়ানই হলেন আইসিসির বিশ্বসেরা ক্রিকেটার! ২৯ আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ১৩২৬ রান, ৭৩.৬৬ গড় ও ১৩৪.৮৯ স্ট্রাইক রেট, ১ সেঞ্চুরি ১২টি ফিফটি! টি-টোয়েন্টিতে সব মিলিয়ে এক বর্ষপঞ্জিতে ২০০০ রান করা প্রথম ব্যাটার! আইসিসি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার।

এইসবই রিজওয়ান ঝুলিতে ভরেছেন পাকিস্তান ব্যাটিং অর্ডারের ৬/৭ নম্বর পজিশন থেকে ওপেনিংয়ে আসার পর। রীতিমতো বিপ্লবই ঘটিয়ে দিয়েছেন টি-টোয়েন্টিতে। কিন্তু এর কিছুদিন আগেই যে টি-টোয়েন্টি খেলাই ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন এই উইকেটকিপার ব্যাটার।

সম্প্রতি ইএসপিএন ক্রিকইনফোকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রিজওয়ান স্বীকার করেছেন সেই কঠিন সময়ের কথা। ২০২০ এর শেষদিকে নিউজিল্যান্ড সিরিজে কোচ মিসবাহ-উল-হকের সিদ্ধান্তে ওপেনিংয়ে নামানো হয় রিজওয়ানকে। প্রথম দুই ম্যাচে তাও ভালো করেননি ১৬ বলে ১৭ ও ২৬ বলে ২২ করেছিলেন। মনের দুঃখে নাকি সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছিলেন তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে বড় রান না করলে টি-টোয়েন্টিই ছেড়ে দেবেন! সিদ্ধান্তের কথা তখন সতীর্থদেরও জানিয়েছিলেন।

“আমার মনে আছে তৃতীয় ম্যাচের আগে আমি ইফতিখার (আহমেদ)কে বলেছিলাম এটা আমার শেষ টি-টোয়েন্টি হবে, যদি আমি সফল না হই। মানুষ আমাকে নিয়ে মজা করতো। বলতো ‘ব্র্যাডম্যান’, ‘স্যার রিজওয়ান’। মানুষ বলতো আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার যোগ্য নই। আমি এই কথাগুলো কখনো গণমাধ্যমের সামনে বলিনি। তবে আমি ভেবে রেখেছিলাম, এবার হলে হবে নাহলে আর নয়।”

দুই ম্যাচে ব্যর্থতার পরও কোচ মিসবাহ আস্থা রেখেছিলেন রিজওয়ানের ওপর। তাইতো শেষ ম্যাচে ৫৯ বলে ৮৯* রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস খেলেন রিজওয়ান। ঐ ইনিংসের ফলেই ঘুরে যায় তার ক্যারিয়ারের মোড়।

এর আগে সবমিলিয়ে ৭৫ টি-টোয়েন্টি ইনিংসে মাত্র ৮বার ওপেন করেছেন রিজওয়ান। বেশিরভাগসময় ৫-৬-৭ এমনকি ৯ নম্বরেও ব্যাট করতেন তিনি। তবে রিজওয়ান জানালেন তিনি নাকি ওপেনিংয়েই শেষবার নিজের ভাগ্য পরীক্ষা করতে বদ্ধপরিকর ছিলেন,

“নিউজিল্যান্ডে নতুন বলে সুইং হয়, তবে আমার চ্যালেঞ্জ নিতে ভালো লাগে। ওয়াকার ভাই (বোলিং কোচ ওয়াকার ইউনিস) আমাকে ওয়ান ডাউন পজিশনের কথাও বলেছিলেন। তবে আমি এর আগে সেখানে ব্যাট করে ব্যর্থ হয়েছিলাম। তাই আমি ঠিক করেছিলাম, হয় আমি ওপেনিংয়েই সফল হবো, নয়তো আমার টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার শেষ হবে।”

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর



রে