ঢাকা, বুধবার, ৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯

পাঁচ কাজ জুমার দিনের বিশেষ ইবাদত

২০২২ ফেব্রুয়ারি ১৮ ১১:৫২:৫০
পাঁচ কাজ জুমার দিনের বিশেষ ইবাদত

মুসলমানের সপ্তাহিক ইবাদতের দিন জুমা। এ দিনের প্রধান ইবাদত জুমার নামাজ আদায় করা। জুমার নামাজ পড়ার পাশাপাশি দিনব্যাপী আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ আমল রয়েছে। হাদিসের ভাষায় এসব আমলগুলোও সর্বোত্তম ইবাদত। কোরআন-সুন্নাহয় যেভাবে দিনটি অতিবাহিত ও আমলগুলো পালন করার দিকনির্দেশনা এসেছে সেভাবে যথাযথভাবে ইবাদতগুলো আদায় করা জরুরি। কোরআন-সুন্নায় নির্দেশিত জুমার দিন বিশেষ ইবাদতগুলো কী?

১. গোসল করা

জুমার দিন উত্তমভাবে গোসল করা। কারণ নবিজী এই দিনের গোসলের ব্যাপারে জোর তাগিদ দিয়েছেন। হাদিসে এসেছে-

হজরত আবু সাঈদ খুদরি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘জুমার দিনে প্রত্যেক সাবালকের জন্য গোসল করা ওয়াজিব।’ (বুখারি)

২. ‍জুমার নামাজ পড়া

এ দিনের প্রধান কাজ হলো- ‘জুমার নামাজ পড়া।’ তাই নামাজের জন্য আহ্বান করার সঙ্গে সঙ্গে আগে আগে মসজিদে গিয়ে উপস্থিত হওয়া। কেননা কোরআনে পাকে এমনই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে-

یٰۤاَیُّهَا الَّذِیۡنَ اٰمَنُوۡۤا اِذَا نُوۡدِیَ لِلصَّلٰوۃِ مِنۡ یَّوۡمِ الۡجُمُعَۃِ فَاسۡعَوۡا اِلٰی ذِکۡرِ اللّٰهِ وَ ذَرُوا الۡبَیۡعَ ؕ ذٰلِکُمۡ خَیۡرٌ لَّکُمۡ اِنۡ کُنۡتُمۡ تَعۡلَمُوۡنَ

‘হে বিশ্বাসীগণ! জুমুআর দিনে যখন নামাজের জন্য আহ্বান করা হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের জন্য দ্রুত ধাবিত হও এবং ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ কর। এটাই তোমাদের জন্য শ্রেয়, যদি তোমরা উপলব্ধি কর।’ (সুরা জুমআ : আয়াত ৯)

৩. বেশি বেশি দোয়া করা

জুমার নামাজের আগে ও পরে বেশি বেশি দোয়া করা। কারণ এ দিন দোয়া কবুল হয়। তাছাড়া নামাজ পড়ার পর উত্তম রিজিক অনুসন্ধানে বের হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহ। তিনি বলেছেন-

فَاِذَا قُضِیَتِ الصَّلٰوۃُ فَانۡتَشِرُوۡا فِی الۡاَرۡضِ وَ ابۡتَغُوۡا مِنۡ فَضۡلِ اللّٰهِ وَ اذۡکُرُوا اللّٰهَ کَثِیۡرًا لَّعَلَّکُمۡ تُفۡلِحُوۡنَ

‘এরপর নামাজ শেষ হলে তোমরা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ সন্ধান কর ও আল্লাহকে অধিকরূপে স্মরণ কর; যাতে তোমরা সফলকাম হও।’

এ আয়াতে আল্লাহ তাআলা তাকে বেশি বেশি স্মরণ করার নির্দেশ দিয়েছেন। আর আল্লাহর অনুগ্রহ (জীবিকার) সন্ধানে জমিনে ছড়িয়ে পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এ থেকে বুঝা যায়; এ দিন বেশি বেশি দোয়া করা আল্লাহর নির্দেশ এবং ইবাদত। যার মাধ্যমে জুমার নামাজ পড়া ব্যক্তির জন্য রয়েছে কল্যাণ, অনুগ্রহ এবং দোয়া কবুলের সর্বোত্তম সম্ভবানা ও সুযোগ।

দোয়া কবুলের বিশেষ মুহুর্ত

জুমআর দিন আসর থেকে মাগরিব পর্যন্ত সময় নামাজে অতিবাহিত করা উত্তম। কিন্তু এ নামাজের অতিবাহিত করার অর্থ হলো- আসর নামাজ আদায় করে মাগরিব পড়ার নিয়তে বাকি সময় মসজিদে অবস্থান করে তাসবিহ-তাহলিল ও দোয়া-দরূদে অতিবাহিত করা। বেশি বেশি দরূদ পড়া। বেশি বেশি ইসতেগফার করা। আর তাতেই নামাজে অতিবাহিত করার সাওয়াব মিলবে। হাদিসের একাধিক বর্ণনায় এসেছে-

> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জুমআর দিনের আলোচনা করতে গিয়ে বলেন, ‘এতে (এ দিনে) কিছু সময় আছে এমন, যখন কোনো মুসলিম বান্দা দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে আল্লাহর কাছে কিছু চাইলে তিনি তাকে তা অবশ্যই দেবেন। তিনি হাতের ইশারায় দেখিয়ে দেন যে, ওই সময়টি (খুবই) অল্প।’ (বুখারি)

> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন,নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, জুমআর দিন একটি সময় আছে যখন কোনো মুসলিম বান্দা আল্লাহর কাছে কোনো কল্যাণ চাইলে, তিনি তাকে তা অবশ্যই দেবেন। আর সেটি হলো আসরের পর।’ (বুখারি, মুসনাদে আহমাদ)

> হজরত জাবির ইবনু আব্দিল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, জুমআর দিন ১২ ঘণ্টা সময়; এর মধ্যে একটি সময় আছে এমন, যখন কোনো মুসলিম বান্দা আল্লাহর কাছে কিছু চাইলে, তিনি তাকে তা অবশ্যই দেবেন। সুতরাং তোমরা আসরের পর শেষ সময়টুকুতে তা অনুসন্ধান কর।’ (আবু দাউদ)

> হজরত আবু মুসা আশআরি রাদিয়াল্লাহু আনহুর ছেলে হজরত আবু বুরদা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু আমাকে বলেন, তুমি কি তোমার পিতাকে জুমআর দিনের (বিশেষ) সময়ের মর্যাদা সম্পর্কে আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কোনো হাদিস বর্ণনা করতে শুনেছ?

আমি বলি, ‘হ্যাঁ’, আমি তাকে বলতে শুনেছি, আমি (আবু ‍মুসা আশআরি) আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি- সেটি হলো ইমামের (বৈঠকে) বসা থেকে নামাজ শেষ হওয়া পর্যন্ত মাঝখানের সময়টুকু।’ (মুসলিম)

আল্লামা ইবনুল কায়্যিম ও অন্যান্য ইসলামিক স্কলারগণ যে মতটি দিয়েছেন, তাহলো- জুমআর দিন দোয়া কবুলের সেই সময়টি হলো আসরের পর। (যাদুল মাআদ)

আল্লামা ইবনুল কায়্যিম বলেন, আমার মতে নামাজের সময়টি মূলত এমন এক সময়, যখন দোয়া কবুলের আশা করা যায়। (সাধারণত নামাজের সময় ও আসরের পর-) উভয়টি হলো দোয়া কবুলের সময়; যদিও বিশেষ এ সময়টি হলো আসরের পর। এটি নির্দিষ্ট। আগে পরে হওয়ারও কোনো সুযোগ নেই। তবে ‘নামাজের সময়’ কথাটি নামাজের আগের ও পরের উভয় সময়কেই বোঝায়।

জুমআর দিন এক জায়গায় মুসলিমদের সমবেত হওয়া; তাদের নামাজ আদায় করা এবং বিনয়ের সঙ্গে আল্লাহর কাছে কিছু চাওয়া- এ সবগুলোরই দোয়া কবুলের পেছনে প্রভাব রয়েছে। তাই তাদের সমবেত হওয়ার সময়টিতে দোয়া কবুর হওয়ার ব্যাপারে আশা করা যায়। আর এভাবেই জুমআর দিনের মর্যাদা ও আমল সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ও সাল্লামের সব হাদিসের মধ্যে সমন্বয় হয়ে যায়।

৪. সুরা কাহফ তেলাওয়াত করা

জুমআর দিন তথা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে জুমআর দিন শুক্রবার সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত কোরআন তেলাওয়াত বিশেষ একটি আমল। এ আমল বলতে সুরা কাহফের তেলাওয়াতকে বুঝায়। এ সুরার তেলাওয়াত বিশেষ ফজিলতপূর্ণ ইবাদত।

সুরা কাহফ কোরআনুল কারিমের ১৫তম পারার ১৮নং সুরা। সম্পূর্ণ সুরাটি তেলাওয়াত করতে না পারলেও প্রথম ও শেষ ১০ আয়াত হলেও তেলাওয়াত করা উত্তম। আর তাতে মিলবে গুরুত্বপূর্ণ সব ফজিলত। হাদিসে এসেছে-

> যে ব্যক্তি জুমার দিন সুরা কাহফ পাঠ করবে তার জন্য এক জুমআ থেকে অপর (পরবর্তী) জুমআ পর্যন্ত নূর হবে।

> যে ব্যক্তি জুমআর দিন সুরা কাহফ তেলাওয়াত করবে, সে আটদিন পর্যন্ত সর্ব ধরনের ফেতনা থেকে মুক্ত থাকবে। যদি দাজ্জাল বের হয় তবে সে দাজ্জালের ফেতনা থেকেও মুক্ত থাকবে।

> এক জুমআ থেকে অপর জুমআ পর্যন্ত তার সব (কবিরা গোনাহ ব্যতিত) গোনাহ মাফ হয়ে যাবে।

৫. বেশি বেশি দরূদ পড়া

জুমআর দিন তথা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে জুমআর দিন শুক্রবার সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত বেশি দরূদ পাঠ করা উত্তম। যদি কোনো ব্যক্তি একবার দরূদ পড়ে তবে তার প্রতি ১০বার রহমত নাজিল করা হয়। তবে জুমআর দিন আসরের নামাজের পর দরূদ পড়ার বিশেষ ফজিলত রয়েছে বলে হাদিসে বর্ণিত হয়েছে।

হজরত আউস ইবনে আউস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘তোমাদের সর্বোত্তম দিনগুলোর একটি হলো জুমআর দিন; এ দিন হজরত আদম আলাইহিস সালামকে সৃষ্টি করা হয়েছে। এ দিন তাঁর মৃত্যু হয়েছে। এ দিন শিঙ্গায় ফুঁ দেওয়া হবে। আর এ দিনই (শিঙ্গায় ফুঁ দেওয়ার ফলে) সবাই অচেতন হয়ে পড়বে।

সুতরাং এ দিন তোমরা বেশি করে আমার জন্য দরূদ পাঠ কর। কারণ, তোমাদের দরূদ আমার কাছে পেশ করা হবে। সাহাবাগণ জিজ্ঞাসা করন, (মৃত্যুর পর) আপনার দেহ শেষ হয়ে যাবে? তখন কীভাবে আমাদের দরূদ পাঠ আপনার কাছে পেশ করা হবে?

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘নবিদের দেহ ভক্ষণ করা আল্লাহ তাআলা মাটির জন্য হারাম করে দিয়েছেন।’ (আবু দাউদ)

অন্য বর্ণনায় এসেছে, হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি দরুদ শরিফ পাঠ করে আল্লাহ তাআলা তার ওপর ১০টি রহমত নাজিল করবেন।’ (মুসলিম, তিরমিজি)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, জুমার দিনটি বিশেষ আমল ও ইবাদতে নিমগ্ন থাকা। কোরআন সুন্নাহর ওপর যথাযথ আমল করা। যথাযথ প্রস্তুতি নিয়ে জুমার নামাজ আদায় করা। জুমার দিনটি কোরআন তেলাওয়াত, দরূদ ও দোয়ার আমলে অতিবাহিত করা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে উল্লেখিত কাজগুলো যথাযথভাবে করার মাধ্যমে দিনটিকে ইবাদতে পরিণত করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

পাঠকের মতামত:

ধর্ম এর সর্বশেষ খবর

ধর্ম - এর সব খবর



রে