ঢাকা, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০

ডলার সংকট নিরসনে হঠাৎ করেই গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিল কেন্দ্রীয় বাংক

অর্থনীতি ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৪ জানুয়ারি ১৭ ১৭:৫৫:৫৬
ডলার সংকট নিরসনে হঠাৎ করেই গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিল কেন্দ্রীয় বাংক

ডলার সংকট নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন থেকে কোনো বাণিজ্যিক ব্যাংক তার নিজস্ব অফশোর ব্যাংকিং ইউনিটে কোনো ডলার বা তহবিল স্থানান্তর করতে পারবে না (বিদেশি মুদ্রা আমানত সংগ্রহ এবং বৈদেশিক মুদ্রা ঋণ বিতরণের জন্য তৈরি করা পৃথক ইউনিট)।

প্রথম ব্যাঙ্ক থেকে অফশোর ব্যাঙ্কিং সত্তায় স্থানান্তরিত তহবিলগুলি পর্যায়ক্রমে মূল ব্যাঙ্কে ফিরিয়ে আনতে হবে। স্থানান্তরিত সমস্ত তহবিল ৩১শে ডিসেম্বরের মধ্যে ফিরিয়ে আনতে হবে।

মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষ থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাদের কাছে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়। এতে বলা হয়েছে, এই নির্দেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

সূত্র জানায়, মূলত ডলার সংকট নিরসনে এবং বাজারে ডলারের প্রবাহ বাড়াতেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এর ফলে ব্যাংকগুলোর কোর ব্যাংকিং ইউনিট থেকে অফশোর ব্যাংকিং ইউনিটে ডলার স্থানান্তর বন্ধ হয়ে যাবে। এতে বাজারে ডলারের প্রবাহ কিছুটা হলেও বাড়বে। বিপরীতে, ব্যাংকগুলোর অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট থেকে বৈদেশিক মুদ্রা ঋণ কার্যক্রম কমবে। এছাড়াও, উদ্যোক্তাদের বৈদেশিক মুদ্রা ধার কমানো হবে। সামগ্রিকভাবে, অফশোর ব্যাংকিং কার্যক্রমের বৃদ্ধি ব্যাহত হবে।

এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা জানান, কেন্দ্রীয় ব্যাংক সাময়িকভাবে এ পদক্ষেপ নিয়েছে। ডলারের প্রবাহ বৃদ্ধি পাওয়ায় বাজার বিধিনিষেধ শিথিল করার কথা বিবেচনা করবে।

অফশোর ব্যাঙ্কিংয়ের প্রধান বৈশিষ্ট্য হল তারা বিদেশ থেকে বৈদেশিক মুদ্রার আমানত সংগ্রহ করে। তারা সেই পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রায় ধার দেবে বিদেশী দেশগুলো অর্থাৎ ইপিজেড বা দেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে। অফশোর ব্যাঙ্কিং কোর ব্যাঙ্কিং-এ কোনও নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না। কিন্তু কোনো লাভ থাকলে তা মূল ব্যাংকে যোগ করা হবে। কিন্তু দেশের অফশোর ব্যাংকগুলো চাহিদা অনুযায়ী বৈদেশিক মুদ্রা আমানত সংগ্রহ করতে পারেনি। সেজন্য তাদের মূল ব্যাংক থেকে ডলার স্থানান্তরের সুযোগ দেওয়া হয়। কিন্তু এখন ডলার সংকটের কারণে মূল ব্যাংক থেকে ডলার স্থানান্তর বন্ধ রাখতে হচ্ছে।

সূত্র জানায়, দেশের অনেক ব্যাংকের বিভিন্ন অফশোর ব্যাংকিং ইউনিট রয়েছে। ২০১৯ সালে, যখন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছেছিল, কেন্দ্রীয় ব্যাংক মূল ব্যাংক থেকে অফশোর ব্যাংকিংয়ে ডলার স্থানান্তরের অনুমতি দেয়। সেই সময়ে, ব্যাংকের নগদ মূলধনের ২০ শতাংশ অফশোর ব্যাংকিংয়ে তহবিল স্থানান্তর করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। ২০২০ সালে, তহবিল স্থানান্তরের হার আরও বাড়িয়ে ৩০ শতাংশ করা হয়েছিল। অর্থাৎ, একটি ব্যাংক তার মূল ইউনিট থেকে একটি অফশোর ব্যাংকিং ইউনিটে তার নগদ মূলধনের 30 শতাংশ স্থানান্তর করতে সক্ষম। এই তহবিলগুলি বৈদেশিক মুদ্রা বা স্থানীয় মুদ্রায় স্থানান্তরিত হয়। অফশোর সত্তা স্থানীয় মুদ্রায় স্থানান্তরিত তহবিল দিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা ফেরত কিনেছে। এগুলো ঋণ হিসেবে বিতরণ করা হবে। তার মানে বৈদেশিক মুদ্রার বাজারে চাপ বেড়েছে। সে সময় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ডলার বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এর আলোকে একটি প্রকল্পে রিজার্ভের টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে।

ডলার সংকট এখন স্পষ্ট হয়ে যাওয়ায় তহবিল স্থানান্তর বন্ধ রয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক চায় অফশোর ব্যাঙ্কিং ইউনিটগুলি স্থানীয় ব্যাঙ্কগুলির উপর নির্ভর না করে স্বনির্ভর হয়ে উঠুক। স্বাবলম্বী হলে তারা বিদেশ থেকে আরও ডলার সংগ্রহ করবে। তাহলে বাজারে ডলারের প্রবাহ বাড়বে। এছাড়াও, ব্যাংকগুলির অর্জিত ডলারের উপর চাপ কমবে।

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ



রে