ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

ব্যবসার প্রধান সমস্যা দুর্নীতি: সিপিডি

অর্থনীতি ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৪ জানুয়ারি ১৭ ১৮:২৮:৫৮
ব্যবসার প্রধান সমস্যা দুর্নীতি: সিপিডি

সংবাদ সম্মেলনে সিপিডির পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জম

২০২৩ সালে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল দুর্নীতি, প্রাতিষ্ঠানিক অদক্ষতা, বৈদেশিক মুদ্রার অস্থিরতা। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দুর্নীতি। সব ধরনের ব্যবসা ত্রুটিপূর্ণ শক্তি নীতি এবং পরিকল্পনা খরচ গণনা করা হয়েছে. একটি বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) বুধবার (১৭ জানুয়ারি) বাংলাদেশ বিজনেস এনভায়রনমেন্ট ২০২৩ উদ্যোক্তা জরিপের ফলাফল প্রকাশ করেছে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সিপিডি গবেষণার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জম।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ৪৬ শতাংশ ব্যবসায়ী বৈদেশিক মুদ্রার স্থিতিশীলতার বিষয়টিকে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের তৃতীয় বৃহত্তম সমস্যা বলে মনে করেন।

CPD চর্বি বাণিজ্যে ১৭টি সমস্যা চিহ্নিত করেছে। শীর্ষ তিনটি ছাড়াও সমস্যাগুলো হলো অপর্যাপ্ত অবকাঠামো, উচ্চ মূল্যস্ফীতি, আর্থিক সীমাবদ্ধতা, জটিল কর নীতি, ঘন ঘন নীতি পরিবর্তন, দক্ষ শ্রমশক্তির অভাব, উদ্ভাবনের ক্ষমতার অভাব, শ্রমশক্তির দুর্বল মনোবল, উচ্চ করের হার, জলবায়ু পরিবর্তন। . , সরকারি অস্থিরতা, অপরাধ ও চুরি, সীমাবদ্ধ শ্রম আইন এবং দুর্বল স্বাস্থ্য ব্যবস্থা।

খন্দেকার গোলাম মোয়াজ্জম এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, একজন ব্যবসায়ী বলেছেন, সার্ভিস সংযোগের জন্য আবেদন করার সময় তার কাছে যে ঘুষ চাওয়া হয়েছিল তা তার পরিকল্পিত বিনিয়োগের সমান। যদিও বড় ব্যবসায়ীরা কিছু উপায়ে ঘুষ-দুর্নীতির মোকাবিলা করতে পারেন, তবে ছোট ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের জন্য এটি একটি বড় সমস্যা।

তিনি আরও বলেন, ব্যবসায় পুরনো চ্যালেঞ্জ ছাড়াও কিছু নতুন চ্যালেঞ্জও দেখা দিয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রা সংকটের মতো। এসব কারণে ব্যবসার পরিবেশ জটিল হয়ে উঠেছে। কিছু ব্যবসায়ী তাদের সক্ষমতা বাড়িয়েছে। তবে এ সংখ্যা খুবই কম। বাণিজ্যে সমস্যার সমাধান না হলে বৈষম্য বাড়বে। কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো এগিয়ে যাবে। পিছিয়ে থাকবেন ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা।

খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জমের মতে, এটি ঘুষ ও দুর্নীতি প্রতিরোধসহ ব্যবসা-বাণিজ্যের সমস্যা সমাধানে রাজনৈতিক শীর্ষ পর্যায়ের সদিচ্ছার প্রতিফলন। নির্বাচনী ইশতেহারেও এমন প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। এটি বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্যবসায়িক পরিবেশের দিক থেকে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের অবস্থান সর্বনিম্ন। ভিয়েতনাম, ভারত, ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ডসহ এশিয়ার প্রতিদ্বন্দ্বী দেশগুলোর চেয়েও পিছিয়ে রয়েছে দেশটি।

ব্যবসায়ীদের মতামতের ভিত্তিতে সিপিডি এই জরিপটি পরিচালনা করেছে। মূলত ২০২৩ সালে ব্যবসার পরিবেশ কেমন হবে তা বিশ্লেষণ করতেই এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে। গত বছরের মে-জুলাই মাসে ঢাকা, গাজীপুর ও সাভারের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ৭১ জন শীর্ষ কর্মকর্তার মতামত নেওয়া হয়। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) সহযোগিতায় এই সমীক্ষা চালানো হয়। উপরন্তু, CPD WEF এর ফিউচার অফ গ্রোথ রিপোর্ট ২০২৩ এর বাংলাদেশ বিভাগের জন্য ডেটা সংগ্রহ করেছে।

ব্যবসার পরিবেশ উন্নত করতে CPD ১০টি সুপারিশ করেছে। তার মধ্যে একটি হল ব্যবসার পরিবেশ উন্নত করার জন্য বিভিন্ন সরকারি অফিসের জন্য ১০০ দিনের, ১ বছর, ৩ বছর এবং ৫ বছরের পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন, ন্যায়পালের কার্যালয় প্রতিষ্ঠা, সীমিত সময়ের জন্য কিছু এলাকা ভিত্তিক কমিশন গঠন, যেমন ব্যাংক, শেয়ারবাজার, নিয়ন্ত্রক সংস্থার সংস্কার, সমন্বিত আর্থিক লেনদেন খাত প্রতিষ্ঠা, সরকারি ক্রয় ব্যবস্থার আধুনিকীকরণ ইত্যাদি।

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ



রে