ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

 দীর্ঘ ২৭ বছর পর অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর ঐতিহাসিক মুহূর্ত (ভিডিওসহ)

খেলা ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৪ জানুয়ারি ২৮ ১৫:৩৩:৫৭
 দীর্ঘ ২৭ বছর পর অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর ঐতিহাসিক মুহূর্ত (ভিডিওসহ)

সিরিজের শুরুর আগে অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি স্টিভ ওয়াহ ক্যারিবিয়ান দলকে উড়িয়ে দিয়েছিলেন। কারণ দলটির ৭ জন ক্রিকেটারের এখনও টেস্ট অভিষেক হয়নি। সেই দলটি দিবারাত্রির টেস্টে প্রথম গোলাপি বলে অস্ট্রেলিয়াকে পরাজিত করেছে। একই সাথে ২০ বছরে অজিদের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট জিতেছে ক্যারিবিয়ান দল। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সাদা রঙে জিততে তাকে ২৭ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে।

এই রোমাঞ্চকর ম্যাচটি অবিলম্বে উভয় হাত প্রসারিত করে শামার জোসেফের একটি রানে পরিণত হয়। ধারাভাষ্যকক্ষে ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি ব্রায়ান লারার আনন্দের অশ্রু ছিল। ‘এটি আমার সৌভাগ্য যে জীবদ্দশায় সবচেয়ে সেরা টেস্ট ম্যাচটি দেখছি’— অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রিসবেন টেস্ট চলাকালে টুইট বার্তায় লিখেছেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার ও বর্তমান ধারাভাষ্যকার ইয়ান বিশপ। আসলেই তাই, পুরো চারদিনই দু’দল দারুণ রোমাঞ্চ ছড়িয়েছে। ম্যাচের পেন্ডুলামও দুলছিল দু’দিকে। একবার অস্ট্রেলিয়া তো আরেকবার মনে হচ্ছিল জিতে গেল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শেষ পর্যন্ত স্নায়ু ধরে রেখে শামার জোসেফরা ৮ রানে ইতিহাস গড়ে জিতলেন।

এমন ম্যাচে হতবাক অস্ট্রেলিয়ান অ্যাডাম গিলক্রিস্টও। লারা তখন কিছু আবেগ সামলিয়ে বলেন: 'আজ সেই দিন যেদিন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট আবার উঠে দাঁড়াবে।'

ম্যাচে ক্যারিবিয়ানদের অত্যাশ্চর্য জয় উপহার দেওয়ার আসল নায়ক ছিলেন জোসেফ। দুপুরের খাবারের বিরতিতে তাকে জগিং করতে দেখা গেছে। আগের দিন, মিচেল স্টার্কের একটি বিধ্বংসী ইয়র্কার থেকে আঙুল দিয়ে রক্ত ​​ঝরছিল। ফলস্বরূপ, পেসার হার্টকে ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে অবসর নেন। ধারণা করা হয়েছিল উইন্ডিজ তার বোলিং পরিষেবা মিস করতে পারে। তৃতীয় দিনে, তারা শেষ পর্যন্ত করেনি। তবে চতুর্থ দিনে তিনি যা করলেন তা অবিশ্বাস্য। তিনি টানা ১০ ওভারের স্পেল বল করেছিলেন। ৬৮ রানে সাত উইকেট নেন আগুনঝারা।

ক্যারিবীয়দের এটাই শক্তি, ইনিংস শুরু করে অজিদের এক প্রান্তে রক্ষক ছিলেন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথ। ইনিংস শেষে ৯১ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। ম্যাচ হারলেও তার অপরাজিত ইনিংস ডিফেন্ডিং টেস্ট চ্যাম্পিয়নদের জন্য স্বস্তি এনে দিতে পারে। সতীর্থরা একপ্রান্তে এদিক-ওদিক চলছিল, কিন্তু স্মিথ অন্য প্রান্তে ১৪৬ বলের ইনিংস খেলেন। ৯টি চার ও একটি ছক্কায় অপরাজিত এই ব্যাটসম্যান শেষ জুটিতে দুই বলে স্ট্রাইক ছেড়ে দেন। এতে, জোসেফ জোশ হ্যাজেলউডকে প্রায় ১৪৫ গতির বল করেন। যার মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়া ২০৭ রানে অলআউট হয়।

এর আগে গাব্বায় ৬০ রানে ২ উইকেটে চতুর্থ দিন শুরু করে অস্ট্রেলিয়া। স্মিথের সাথে আগের দিন অপরাজিত থাকা ক্যামেরন গ্রিন আজ ১১তম ওভারে শামার জোসেফের বলে বোল্ড হন। তার বিদায়ে তাদের ৭১ রানের জুটি ভেঙে যায়। ৪২ রান করেন এই অলরাউন্ডার। পরের ২৩ রানে আরও তিন ব্যাটসম্যানকে হারায় স্বাগতিকরা। মিচেল স্টার্ক বাদে স্মিথের সঙ্গে আর কেউ বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি। অস্ট্রেলিয়ার তৃতীয় সর্বোচ্চ স্কোর আসে স্টার্কের ব্যাট থেকে।

তৃতীয় দিনে বোলিং না করা জোসেফ পায়ে চোটের কারণে ১১.৫ ওভার খেলেছেন। তাকে এমন রান দেওয়া ম্যাচ শেষে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে। তার শিকার দুই ইনিংসে ৮ উইকেট। এতেই তিনি ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান। দুই ম্যাচে ৫৭ রানের পাশাপাশি ১৩ উইকেট শামার সিরিজ সেরা করেছে। বড় হারে সিরিজে ওপেন করা উইন্ডিজ এই ম্যাচের পর ১-১ সমতায় ড্র করে।

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ



রে