ঢাকা, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

সেমিফাইনালের লড়াইয়ে সহজ টার্গেট পেলো বাংলাদেশ!

খেলা ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৪ জানুয়ারি ৩১ ১৮:২২:২৩
সেমিফাইনালের লড়াইয়ে সহজ টার্গেট পেলো বাংলাদেশ!

ভারতের বিপক্ষে হেরে চলমান অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ শুরু করেছে বাংলাদেশ। তবে গ্রুপ পর্বের পরের ম্যাচগুলো জিতে সুপার সিক্সে পৌঁছেছে টাইগাররা। তবে প্রথম ম্যাচে হারের কারণে পয়েন্ট টেবিলে পিছিয়ে থাকায় সেমিফাইনালে ওঠা বাংলাদেশের জন্য খুবই কঠিন।

সুপার সিক্সের দুই ম্যাচে বড় জয় ছাড়া কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠার কোনো সম্ভাবনা নেই টাইগারদের। এই সমীকরণ মাথায় রেখে বাংলাদেশ নেপালকে মাত্র ১৬৯ রানে গুটিয়ে দিয়েছে টাইগাররা। তরুণ টাইগারদের সহজ টার্গেট দিল নেপাল !

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) দক্ষিণ আফ্রিকার ব্লুমফন্টেইনে সুপার সিক্স টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে নেপালের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। সেমিফাইনালে খেলতে হলে দুটি ম্যাচ জিততে হবে টাইগারদের। তবে শুধু জিতলেই হবে না, জয়ের ব্যবধানও বড় হতে হবে। কারণ লিটল টাইগাররা ক্যারি পয়েন্ট এবং রান রেটের জটিল সেট হিসেবে সুপার সিক্সে আটকে আছে।

এমন কঠিণ সমীকরণের ন্যাচে টসে হেরে আগে বোলিংয়ে নামে বাংলাদেশ। ইনিংসের পাওয়ার প্লেতেই মাহফুজ রাব্বির দল দ্রুত সাফল্য পায়। প্রথম ১০ ওভারে ৩৫ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে নেপাল। যার শুরুটা করেছিলেন মারুফ মৃধা। বাঁ-হাতি এই পেসারের ডেলিভারিতে নেপাল ১৮ রানে ওপেনার বিপিন রাওয়ালকে হারায়। ওয়ানডাউনে নামা আকাশ ত্রিপাঠিও বলার মতো কিছু করতে পারেননি। নেপালের চাপ বাড়িয়ে ইকবাল হোসেন ইমনের বলে তিনি ফেরেন মাত্র ৩ রানে।

ইনিংসে শুরুর ধাক্কা আরও তীব্র হয় আরেক ওপেনার অর্জুন কামালের বিদায়ে। বর্ষণের বলে ক্যাচ আউট হওয়ার আগে তার ব্যাটে আসে ১৪ রান। এমন চাপের মুখে নেপালকে সামনে টেনে নিয়ে যাওয়ার কাজটা করেন অধিনায়ক দেভ খানাল ও বিশাল বিক্রম। মিডল অর্ডারের এই জুটিতে আসে ৬২ রান। দেভকে ব্যক্তিগত ৩৫ রানে ফিরিয়ে টাইগারদের ব্রেকথ্রু এনে দেন অনিয়মিত স্পিনার জিসান আলম।

এরপর যাওয়া-আসার মিছিলে যোগ দিয়েছেন গুলশান ঝা, দীপক বোহারা ও দিপেশ ক্যান্ডেল। তারা তিনজনই করেছেন সমান ৩ রান করে। ফলে একপ্রান্ত আগলে রাখা বিক্রমও আর দম ধরে রাখতে পারেননি। ব্যক্তিগত ৪৮ রানে থাকাবস্থায় তাকে বোল্ড করে দেন বর্ষণ। ১০০ বলের ধীরগতির এই ইনিংসে তিনি ৬টি চার হাঁকিয়েছেন। এরপর শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকা সুভাষ ভান্ডারির ১৮ রান বাদে বলার মতো আর কেউ রান করতে পারেনি নেপালের। এক বল বাকি থাকতেই তারা অলআউট হয় ১৬৯ রানে।

বাংলাদেশের হয়ে ৮.৫ ওভারে মাত্র ১৯ রানেই সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নিয়েছেন বর্ষণ। শেখ পারভেজ জীবন নিয়েছেন ৩ উইকেট। এছাড়া ইমন, মৃধা ও জিসান একটি করে শিকার করেছেন।

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ



রে