ঢাকা, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১

টানা ৫ম বার ফাইনালে উঠে কোচ সালাউদ্দিনকে নিয়ে রহস্যময় মন্তব্য করলেন লিটন

খেলা ডেস্ক . ২৪আপডেট নিউজ
২০২৪ ফেব্রুয়ারি ২৭ ১০:৩২:০১
টানা ৫ম বার ফাইনালে উঠে কোচ সালাউদ্দিনকে নিয়ে রহস্যময় মন্তব্য করলেন লিটন

পঞ্চমবারের মতো বিপিএলের ফাইনালে কুমিল্লা। এর আগে দলটি চারবার ফাইনালে উঠেছে এবং সবকটিতেই শিরোপা জিতেছে। দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন বরাবরই এই শিরোপার পেছনে অন্যতম প্রধান কারণ। কোচ সালাহউদ্দিন তরুণ ক্রিকেটার এবং অভিজ্ঞ খেলোয়াড় উভয়ের কাছেই সম্মানিত। তিনি কুমিল্লার সেরা কোচও বললেন অধিনায়ক লিটন দাস।

গতকাল কোয়ালিফায়ারে রংপুর রাইডার্সকে হারানোর পর এক সংবাদ সম্মেলনে লিটন বলেন, “আমার মনে হয় রংপুর কুমিল্লা কাছাকাছি। তারা দীর্ঘদিন ধরে একই কোচিং স্টাফ, প্রায় একই খেলোয়াড়দের সাথে চলছে। আমি মনে করি (সালাউদ্দিন) স্যার। কিছু নিয়ম আছে স্যার। একজন খেলোয়াড়কে কয়েকদিনের জন্য সুযোগ দিন। এটা স্বাভাবিক হতে হবে। আপনি এক মৌসুমে একজন খেলোয়াড়কে বিচার করতে পারবেন না।

কুমিল্লা লিটনের অধিনায়কও কোচ সালাহউদ্দিনের মানসিকতার প্রশংসা করে বলেন, স্যার, সবাই ঘরোয়া ক্রিকেটও খেলে। আমি মনে করি এটি একটি ভাল জিনিস। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আমরা সবাই খুব বন্ধুত্বপূর্ণ। আমাদের বিভাগের একজন নতুন ব্যক্তি কখনই জানবেন না যে আমরা খুব সিনিয়র লোকদের সাথে বসে কথা বলি। তারা সবাই এত স্বাধীন, স্যার, এত মুক্তচিন্তা। আপনি যদি খেলোয়াড়কে খেলার স্বাধীনতা দেন, মজা করুন। তারা নিজেদের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করে। এ ক্ষেত্রে সালাহউদ্দিনই সেরা।

বড় রান চেজ করে কুমিল্লার এমন জয়ের পেছনে বড় অবদান ছিল তাওহীদ হৃদয়ের সঙ্গে লিটনের ১৪৩ রানের বড় জুটির। দুর্দান্ত এক ব্যাটিং প্রদর্শনীই এদিন দেখেছে মিরপুরের শের-ই বাংলা স্টেডিয়াম। নিজের সঙ্গীর এমন দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ লিটন দাস নিজেও।

তাওহিদকে প্রশংসায় ভাসিয়ে লিটন বললেন, ‘আমার যেটা মনে হয় ও ভালো বলটাকেও ছয় মারতে পারে যেটা খুব কম ব্যাটারই পারে আমাদের দেশে। স্বাভাবিক যেকোনো বোলার যে ফরম্যাটেই হোক না কেন উইকেটেই বল করবে। আর সে উইকেটের বলটাই বেশি ভালো মারে। শুধু ও না, যারা বিশ্ব ক্রিকেটে সফল সবাই স্টাম্পের বল ভালো খেলে। আমার মনে হয় এটা ওর সবচেয়ে বড় প্লাস পয়েন্ট।'

লিটন বললেন বড় ছয়ের কথাও, 'দেখতে ছোটখাটো হলেও বড় বড় মারতে পারে। এটাও ওর জন্য একটা আলাদা (সুবিধা)। যেটুকু আমি ওকে সামনে থেকে দেখি সে ক্রিকেট নিয়ে অনেক চিন্তিত। ও অনেক পরিশ্রমী। নরমালি খুব কম মানুষই এত জিমে যায়। ও অফ সময়ে খালি জিমেই থাকে। আমার মনে হয় এটা খুবই ভালো একটা দিক।’

আপনার জন্য বাছাই করা কিছু নিউজ



রে